লকডাউনে বিদ্যালয়ে যেতে হবে না প্রাথমিক শিক্ষকদের

30

সরকার ঘোষিত লকডাউনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিদ্যালয়ে যেতে হবে না। তবে গ্রামের যেসব প্রতিষ্ঠানে অবকাঠামো উন্নয়ন চলছে এবং উপবৃত্তির প্রয়োজনে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয়ে যাবেন। তবে শিক্ষকদের বিদ্যালয়ে যাওয়া বাধ্যতামূলক নয়। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
এ বিষয়ে মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, কোনো শিক্ষক লকডাউনে বিদ্যালয়ে যাবেন না। জেলা শিক্ষা অফিসারদের বলে দেয়া হয়েছে। শুধুমাত্র যেখানে অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ চলছে সেখানে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা যাবেন। সব শিক্ষক অবকাঠামো উন্নয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নন। গ্রামাঞ্চলের কিছু কিছু জায়গায় অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ চলছে, শহরে নেই। যদি কোথাও কাজের প্রয়োজনে যাওয়া লাগে সেক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষক যাবেন। আর যদি প্রধান শিক্ষক কাউকে নিয়ে যেতে যান তাহলে নিয়ে যাবেন জরুরি প্রয়োজনে। সেক্ষেত্রেও কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।
শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ এবং পাঠ-সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চাইলে মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, অনলাইনে শিক্ষকরা যোগাযোগ করবেন, মোবাইলে যোগাযোগ করবেন। প্রত্যেক উপজেলা/থানা সহকারী শিক্ষা অফিসারকে বলে দেয়া হয়েছে। শিক্ষকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। উপবৃত্তির টাকা দেয়ার জন্য যেসব শিক্ষকদের প্রয়োজন তাদের যেতে হবে। পুরনো অনেক প্রধান শিক্ষক অনলাইনের বিষয়টি পারেন না, সেক্ষেত্রে যে শিক্ষক পারেন তাদের দিয়ে করাবেন।
সব শিক্ষকের বিদ্যালয়ে যাওয়া বাধ্যবাধকতার বিষয়ে মহাপরিচালক বলেন, বাধ্যতামূলকভাবে কোনো শিক্ষক বিদ্যালয়ে যাবেন সে সুযোগ নেই। করোনার বিস্তারের কারণে অফিসেই তো ৫০ শতাংশ করে কাজ করতে বলা হয়েছে। সেখানে লকডাউনে বিদ্যালয়ে যাওয়ার বাধ্যবাধকতা কেন থাকবে? থাকার সুযোগ নেই।
উল্লেখ্য, গত বছর ৮ মার্চ দেশে করোনা রোগী শনাক্ত হলে গত বছর ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দফায় দফায় ছুটি বাড়িয়ে আগামী ২২ মে পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছে।