মিয়ানমারে বিক্ষোভে গুলি, আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া

12

মিয়ানমারে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে ১৮ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় জাতিসংঘসহ কয়েকটি দেশ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। জাতিসংঘের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও ইন্দোনেশিয়া রোববারের ওই সহিংসতার নিন্দা করেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন মিয়ানমারের সহিসংতার নিন্দা জানিয়ে একে নিরাপত্তা বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত ‘জঘন্য সহিংসতা’ বলে মন্তব্য করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র ‘দৃঢ়ভাবে’ মিয়ানমারের জনগণের পাশে আছে জানিয়ে রোববার এক টুইটে তিনি বলেন, “তাদের ইচ্ছার প্রতি সমর্থন জানাতে সব দেশকে এক সুরে কথা বলার জন্য উৎসাহিত করছি (আমরা)।” কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্ক গার্নাউ বলেছেন, “সামরিক বাহিনী তাদের নিজেদের জনগণের বিরুদ্ধেই প্রাণঘাতী শক্তি ব্যবহার করেছে, এটি ভয়াবহ ঘটনা।” মিয়ানমারের সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ব্লিনকেন ও গার্নাউ, উভয়েই। মিয়ানমারে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের গুলির ঘটনায় ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশ করেছে ইন্দোনেশিয়া। মিয়ানমারের জান্তাবাহিনীকে সংযম প্রদর্শনের আহ্বানও জানিয়েছে তারা। ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘‘ইন্দোনেশিয়া মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীকে বিক্ষোভ দমনে বলপ্রয়োগে আরো সংযত থাকার এবং রক্তপাত ও প্রাণহানি এড়াতে সর্বোচ্চ ধৈর্যের অনুশীলন করার আহ্বান জানাচ্ছে।” মিয়ানমারে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি টম অ্যান্ড্রুজ বলেছেন, জান্তার আক্রমণ অব্যাহত থাকবে এটি পরিষ্কার ছিল, তাই বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতিক্রিয়া জোরদার করা উচিত। তিনি মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা, অভ্যুত্থানের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আরও বেশি দেশ থেকে আরও বেশি নিষেধাজ্ঞা, সামরিক বাহিনীর ব্যাবসাগুলোর ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে পদক্ষেপ নিতে বলুক। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, “নিন্দাবাক্যকে স্বাগত জানাই কিন্তু এগুলো যথেষ্ট নয়। আমাদের অবশ্যই পদক্ষেপ নিতে হবে। আমাদের চোখের সামনে মিয়ানমারে যে দুঃস্বপ্ন শুরু হয়েছে তা আরও খারাপ হবে। বিশ্বকে অবশ্যই পদক্ষেপ নিতে হবে।” মিয়ানমারের বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের আন্দোলনকারীরাও প্রতিবাদের আয়োজন করেছেন। থাইল্যান্ডের তরুণদের নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক আন্দোলন মিয়ানমারের অভ্যুত্থান বিরোধীদের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে। মিয়ানমারে রোববারের সহিংসতায় অন্তত ২৬ জন নিহত হয়েছেন বলে দেশটির নভেম্বরের নির্বাচনে পার্লামেন্টের বিভিন্ন আসনে জয় পাওয়া আইনপ্রণেতাদের একটি কমিটি জানিয়েছে। তবে তাদের এ দেওয়া এ তথ্য যাচাই করা যায়নি বলে রয়টার্স জানিয়েছে। সামরিক অভ্যুত্থানের পর সবচেয়ে রক্তাক্ত দিনটি পার করে সোমবার মিয়ানমারের সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনকারীরা ফের বিক্ষোভে নেমেছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।