জেলাবাসী বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেছে ভাষা শহীদ ও সৈনিকদের

10

বিনম্র শ্রদ্ধায় ভাষা শহীদ ও ভাষা সৈনিকদের স্মরণ করেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাবাসী। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ শহীদ মিনারসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে এবং ২১ ফেব্রুয়ারি প্রত্যুষে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে বীর শহীদানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন হাজারো মানুষ। ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’…একুশের এ অমর সংগীতের সঙ্গে শিশু, কিশোর, তরুণ, বৃদ্ধ-সব বয়সের-সব ধর্মের-সব জাতিগোষ্ঠীর মানুষ এসেছিল মায়ের ভাষার জন্য যাঁরা অকাতরে দিয়ে গেছেন প্রাণ তাঁদের শ্রদ্ধা জানাতে। ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় শহীদ মিনার।

প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ :
নিজস্ব প্রতিবেদক : একুশের প্রথম প্রহরে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অপর্ণ করেন জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মইনুদ্দিন মন্ডলসহ বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, পুলিশ সুপার এএইচএম আব্দুর রকিবসহ জেলা পুলিশের কর্মকর্তাগণ। এছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। সকালে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে প্রভাতফেরি শেষে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
দিবসটি উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ ছাড়াও কর্মসূচির মধ্যে ছিল, সকল প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা, গ্রীন ভিউ উচ্চ বিদ্যালয়ে উপস্থিত রচনা প্রতিযোগিতা, সুন্দর হাতের লেখা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে দেশাত্মবোধক সংগীত, নৃত্য ও কবিতা আবৃত্তি। বাদ যোহর সকল মসজিদে বিশেষ মোনাজাত, সকল মন্দির, গীর্জা ও উপসানালয়ে বিশেষ প্রার্থনা।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ বলেন- জাতিসংঘের কাছে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বাংলা ভাষাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে গ্রহণ করার জন্য দাবি জানানো হয়েছে। দাবিটি নিশ্চয় পৌঁছে যাবে। কেননা বাঙালি জাতি যা দাবি করে তা পুরণ হয়। সুতরাং আমরা ধরে নিতে পারি এ দাবি পুরণ হবে এবং খুব তাড়াতাড়ি জাতি সংঘে দাপ্তরিক ভাষা হবে বাংলা ভাষা। জেলা প্রশাসক আরো বলেন-পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর প্রথমেই ভাষার উপর কেন আঘাত করা হয়েছিল। কেনইবা ঘোষণা করা হয়েছিল উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা? তার কারণ হিসেবে আমার কাছে মনে হয়েছে একটি জাতির নিজস্ব ভাষা যদি না থাকে তাহলে আন্দোলন সংগ্রাম করা যায়না, জ্ঞানের বিকাশ ঘটানো যায় না। একটি জাতিকে দাবিয়ে রাখা সহজ হয়। আর সেই জন্যই ভাষার উপর আঘাত হানা হয়েছিল। কিন্ত বাংলার সূর্যসন্তানেরা তা হতে দেয়নি।
সোনার বাংলার স্বপ্ন নিয়ে আমাদের সকল আন্দোলন ছিল, এদেশ দুর্নীতি মুক্ত হবে, সন্ত্রাসমুক্ত হবে, সোনার বাংলা হবে। সেই সোনার বাংলা গড়তে হলে আমাদের সকল সোনার মানুষ হতে হবে। আমাদের সন্তানদের সোনার মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। মাদক, সন্ত্রাস, বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে হবে।
প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি : উন্নয়ন সংস্থা প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি, রেডিও মহানন্দা এবং প্রয়াস ফোক থিয়েটার ইনস্টিটিউট ও দৈনিক গৌড় বাংলা পত্রিকার পক্ষ থেকে প্রভাত ফেরি, পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। জেলা শহরের বেলেপুকুর থেকে প্রভাত ফেরি শুরু হয়ে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্প অর্পণ করে ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক, রেডিও মহানন্দার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও দৈনিক গৌড় বাংলার সম্পাদক হাসিব হোসেন, দৈনিক গৌড় বাংলার বার্তা সম্পাদক সাজিদ তৌহিদ, রেডিও মহানন্দার টেকনিক্যাল অফিসার রেজাউল করিম, প্রয়াস ফোক থিয়েটার ইনস্টিটিউটের টিম লিডার শরিফুল ইসলামসহ অন্যান্যরা।
ওয়েল ফেয়ার ক্লাব : চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবী নারী সংগঠন ওয়েল ফেয়ার ক্লাব এর আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেয়া হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮ টায় ওয়েল ফেয়ার ক্লাবের আহ্বায়ক সেলিনা বিশ্বাসের নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসি ইসলাম জেসিসহ অন্যরা।
নবাবগঞ্জ কামিল মাদ্রাসা : চাঁপাইনবাবগঞ্জে কামিল মাদ্রাসার আয়োজনে অমর একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে প্রভাতফেরি করে সরকারি কলেজের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে মাদ্রাসার হলরুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অধ্যক্ষ ডক্টর এমরান আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রুহুল আমিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজসেবক আনোয়ারুল হক, গণিত বিভাগের প্রভাষক আব্দুল্লাহিল কাফি।
গোমস্তাপুর প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা প্রশাসন গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে ছিল ২১শের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করণ, শিশু-কিশোরদের কবিতা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, ভাষা শহীদদের স্মরণে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা এবং আলোচনা সভা। ২১শের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি জিয়াউর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার নজির, গোমস্তাপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহিদুর রহমান, গোমস্তাপুর থানার ওসি দিলিপ কুমার দাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা আকতার আলী খান কচিসহ উপজেলা পরিষদ, রহনপুর পৌরসভা, পুলিশ প্রশাসন, রহনপুর পৌর নব নির্বাচিত মেয়র মতিউর রহমান খাঁন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, উপজেলা প্রেসক্লাব, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। বিকেলে উপজেলা অডিটোরিয়ামে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান।
ভোলাহাট প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে মহান শহীদ দিবস ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিবসটি উপলক্ষে দিবসের প্রথম প্রহরে রবিবার (রাত ১২টা ১ মিনিটে) রামেশ^র উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। উপজেলা প্রশাসনের পর একে একে শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করে পুলিশ প্রশাসন, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ। পরে উপজেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ, জাতীয় পার্টি, বিএনপিসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠন। পর্যায়ক্রমে সরকারী মহিলা কলেজ, মোহবুল্লাহ কলেজ, পল্লী মঙ্গল পলিটেশনিক্যাল ইনসটিটিউট, ঝাউবোনা কৃষি ডিপোøামা ইনসটিটিউটসহ বিভিন্ন কলেজ, স্কুল, ক্লাব, এনজিও, সামাজিক সংগঠন পুস্পস্তবক অর্পন শেষে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন ও দোয়া করা হয়। এছাড়াও সূর্যোদয়ের সাথে সাথে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীগণ শহীদবেদিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সরকারি বেসরকারি ভবনে অর্ধনমিত রাখা হয় জাতীয় পতাকা।
অপরদিকে পৃথক ভাবে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে বেলা ১১টার দিকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের আয়োজনে দোয়া ও আলোচনা করা হয়। এ সময় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার সাবেক কমান্ডার আলহাজ¦ নুরুল হক, আলহাজ¦ মনিরুদ্দিন মুন্টু, বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম হোসেন, দলদলী ইউনিয়ন কমান্ডার মেসের আলী, জামবাড়ীয়া ইউনিয়ন কমান্ডার তৈয়মুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা সেতাউর রহমানসহ অন্যান্য বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ। আওয়ামীলীগ দলীয় অফিসে দিবসটি পালনে নানা কর্মসূচি পালন করে।
নাচোল প্রতিনিধি : নাচোলেও একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদা ও বিন¤্র শ্রদ্ধায় ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। নাচোল উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি খাদিজা বেগম, ওসি সেলিম রেজা, অধ্যক্ষ ওবায়দুর রহমান, পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ ঝালুখান, মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার মতিউর রহমান। অপরদিকে দিবসের কর্মসূচির মধ্যে ছিল, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান সমূহের ভবন এবং সরকারি বেসরকারি সকল বাসভবন শীর্ষে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা। সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানার সভাপতিত্বে শহীদ দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।