উৎসবমুখর পরিবেশে নতুন মাত্রা ইভিএম

20

মাঘ মাস শেষ হয়েছে। শুরু হয়েছে ফাল্গুন। রবিবার সকালে মাঘের কনকনে শীতের কিছুটা আঁচ ছিল। তবে তা ভোটারদের উপস্থিতিতে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। স্বতঃস্ফূর্তভাবে ৮টা বাজার আগে থেকেই ভোট দিতে কেন্দ্রে আসতে শুরু করেন ভোটাররা। বেলা ১২টা পর্যন্ত প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রে ছিল উৎসবমুখর পরিবেশ। ছিল ভোটারদের সরব উপস্থিতি।
রবিবার ছিল চতুর্থ ধাপে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন। পনেরটি ভোট কেন্দ্রে প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দিচ্ছেন পৌরবাসী।
নতুন পদ্ধতিতে ভোট হওয়ায় কিছুটা সময় বেশি লাগলেও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন অনেকেই। ভোটার বিদ্যুৎ কুমার পাল, আরিফা বেগমসহ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে স্বাচ্ছন্দ্যের বিষয়টি জানা গেছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে প্রতিটি কেন্দ্রে বাড়ছিল ভোট পড়ার হারও।
বেলা সোয়া ১০টায় শিবগঞ্জ সরকারি মডেল হাই স্কুল কেন্দ্র পরিদর্শনে আসেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মো. মোতাওযাক্কিল রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খানসহ অন্যরা। এ সময় জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, শান্তিপূর্ণভাবেই ভোট গ্রহণ চলছে। ভোটাররা ভালোভাবেই ইভিএমে ভোট দিচ্ছেন।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। আশা করছি, শিবগঞ্জ পৌরবাসীকে একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ এবং সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারব।
বেলা ৩টার পরে শিবগঞ্জ পৌরসভার ভোটকেন্দ্র পরির্দশন করেন পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব।
এবারে শিবগঞ্জ পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে তিন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দি¦তা করছেন। এরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত সৈয়দ মনিরুল ইসলাম (নৌকা), বিএনপি মনোনীত ওজিউল ইসলাম (ধানের শীষ) ও জাতীয় পার্টি মনোনীত আফজাল হোসেন (লাঙ্গল)। এছাড়া সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৫ জন লড়ছেন।
শিবগঞ্জ পৌরসভায় মোট ভোটার ৩২ হাজার ৯৭৯ জন। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৪৩২ জন পুরুষ এবং ১৬ হাজার ৫৪৭ জন নারী ভোটার রয়েছেন।
নির্বিঘেœ ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করার জন্য কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়। নির্বাচনে ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি ২ প্লাটুন বিজিবি, আনসার ও ডিবি পুলিশ সদস্যও নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। ১৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল ১০টি।