ক্ষমতায় বসেই ঐক্যের ডাক বাইডেনের

4

ক্ষমতা গ্রহণ করেই যুক্তরাষ্ট্রকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জো বাইডেনের; জানালেন এখন বিভেদের সময় নয়। অবশেষে ক্ষমতার আসনে বসলেন জোসেফ রবিনেট বাইডেন জুনিয়র। বাকি বিশ্বের কাছে যিনি পরিচিত জো বাইডেন নামেই। বাইডেন এমন একসময় আমেরিকার ক্ষমতা হাতে নিলেন যখন করোনা মহামারি আর সামাজিক-রাজনৈতিক অস্থিরতায় টালমাটাল আটলান্টিক পাড়ের দেশটি। বাইডেন প্রশাসনের পথচলা শুরু হলো এক সংকটময় মুহূর্তে। অতীতের যে কোনও সময়ের চেয়ে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এমনকি দেশটির ভেঙ্গে পড়া অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করার দায়িত্বও নিতে হবে বাইডেনকেই। বিষয়টি অনুধাবন করেই হয়তো প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েই জো বাইডেন বলেন, ‘এখন বিভেদের সময় নয়। এখন সংকট মোকাবিলা করার সময়। এখন প্রয়োজন ঐক্যের। ঐক্য ছাড়া শান্তি আসবে না।’ ঐতিহাসিক ক্যাপিটল হিলের সামনে শপথ নিয়েই বাইডেন বলেন, ‘এই বিজয় গণতন্ত্রের বিজয়।’ যে কোনও মূল্যে মার্কিন সংবিধান, গণতন্ত্র ও মূল্যবোধ রক্ষা করবেন বলেও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। বাইডেন আরও বলেন, ‘এটা আমেরিকার দিন, এটা গণতন্ত্রের দিন। কোনও প্রার্থীর বিজয় নয়, গণতন্ত্রের বিজয় উদযাপন করছি সবাই। যে বিজয়ে জনগণের আশা আকাক্সক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে। চলুন একসাথে আশাবাদের ইতিহাস গড়ি। আসুন একে অপরকে শ্রদ্ধা করি আমরা। কারণ এখন বিভেদের সময় নয়, এক হয়ে করোনার মত সংকট মোকাবিলার সময়।’ ক্যাপিটল হিলের সামনে দাঁড়িয়ে দেয়া ভাষণে বাইডেন বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্রের মূল্য অনুধাবন করতে পেরেছি। এখানে কয়েকদিন আগে তাণ্ডব হয়েছে। আমাদের এখান থেকেই আবার ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’ ২১ মিনিটের বক্তব্যে বাইডেন বর্ণবাদকে সবচেয়ে ঘৃণ্য কাজ মন্তব্য করে বলেন, ‘যে কোনও মূল্যে শেতাঙ্গ আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। অভ্যন্তরীণ সন্ত্রাসবাদ, বর্ণবাদের মত বিষয়গুলোর বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম চলবে। আমি জানি অনেক ক্ষেত্রেই আমরা একমত নই। কিন্তু এটাই গণতন্ত্র, যেখানে নানা মত থাকবে। এটাই যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহ্য। তবে, অঙ্গীকার করছি আমি হব আপনাদের সবার প্রেসিডেন্ট। নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও জানান, সামনের দিনে সব দেশের সঙ্গেই সম্পর্ক পুনঃস্থাপন করা হবে। বৈশ্বিক ভাবমূর্তি উদ্ধার, অর্থনীতি পুনরুদ্ধার এবং আমেরিকানদের ঐক্যবদ্ধ করার চ্যালেঞ্জে বাইডেন প্রশাসন কতটা সফল হতে পারে তা দেখার অপেক্ষায় বিশ্ব।