পরিচালক সমিতিতে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ মামুন

4

নির্মাতা অনন্য মামুনের সদস্যপদ স্থায়ীভাবে বাতিল করেছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি। শনিবার কার্যনির্বাহী বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেএকাধিক পরিচালক নিশ্চিত করেছেন। যার ফলে এই নির্মাতা আজীবনের জন্য পরিচালক সমিতিতে নিষিদ্ধ হলেন। পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন বিষয়টি প্রসঙ্গে বলেন, ‘আজ আমাদের দ্বিবার্ষিক বৈঠক ছিল। সেখানে অনন্য মামুনের বিষয়টি কার্যকর হয়।’ মামুন সমিতির সুনাম ক্ষুণ্ণ করেছেন তাই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান খোকন। এদিকে, সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ‘নবাব এলএল.বি’ সিনেমায় অশ্লীলতা ও পুলিশকে হেয় করার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিলেন অনন্য মামুন। সমিতির একাধিক নেতা দাবি করেন, সম্প্রতি ঘটে যাওয়া মামলার রায়ের জন্য তারা অপেক্ষা করতে চান না। কারণ নিজেদের তদন্ত কমিটি ‘নবাব এলএল.বি’ ছবিটি দেখেছে। তারপর এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর আগেও মামুনের নামে অভিযোগ ছিল। তখন তার পদ সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছিল। ‘নবাব এলএল.বি’ সিনেমায় অশ্লীলতা ও পুলিশকে হেয় করার অভিযোগে পর্নগ্রাফি আইনে রাজধানীর রমনা থানায় মামুন ও এক অভিনেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছিল। পরে তাদের গ্রেফতারও করা হয়। বর্তমানে মামুন জামিনে আছেন। বিষয়টি নিয়ে এই পরিচালকের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি কোনও সাড়া দেননি। তবে শনিবার সন্ধ্যায় ফেসবুকে নিজের প্রোফাইল থেকে একটি স্ট্যাটাসে মামুন লেখেন, ‘‘পরিচালক সমিতির সদস্যপদ না থাকলে সিনেমা বানাতে পারবো না- কথাটি সত্য নয়। সমিতির সদস্য পদ না থাকলে আমি সংগঠনটির সুযোগ-সুবিধা পাব না। মোহাম্মদ জে…. নামের একজন পরিচালক আছেন যিনি ব্যক্তিগতভাবে আমাকে সহ্য করতে পারেন না। কারণ তার সিনেমাগুলো আমার কাছে অখাদ্য মনে হয়। আর ২০১৬ সালে ‘অস্তিত্ব’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান নুসরাত ইমরোজ তিশা এবং ২০১৯ সালে তারিক আনাম খান একই পুরস্কার পান ‘আবার বসন্ত’ সিনেমার জন্য। ছবিগুলো আমার পরিচালনায় নির্মিত। ইনশাআল্লাহ এবার ‘নবাব এলএল.বি’ সিনেমাতেও অনেক পুরস্কার আসবে। বলে রাখি, এ বছর অনন্য মামুন ৫টি সিনেমা বানাবে।’’ মামুনের বিরুদ্ধ এর আগেও বহু অভিযোগ এসেছে। যৌথ প্রযোজনার সিনেমা নির্মাণে প্রতারণা, ভুয়া শিক্ষাসনদ দিয়ে পরিচালক সমিতিতে সদস্যপদ নেওয়া ও অপেশাদারিত্বের আচরণের অভিযোগ শোনা যায় তাকে নিয়ে। সম্প্রতি ‘নবাব এলএল.বি’ ছবি নিয়েও ক্ষুব্ধ ছিলেন এর শিল্পীরা। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মানবপাচারের অভিযোগে মালয়েশিয়ায় গ্রেফতার হয়েছিলেন অনন্য মামুন। ওই সময় তার সদস্যপদ সাময়িকভাবে স্থগিত করেছিল পরিচালক সমিতি। পরে মুচলেকা দিয়ে বিষয়টির সমাধান করেছিলেন মামুন।