বছরের ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড়ে ফিলিপাইনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৭

29

বছরের সবচেয়ে প্রাণঘাতী ঘূর্ণিঝড় ভ্যামকোর আঘাতে ফিলিপাইনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৭ জনে। সেখানে এখনও অন্তত ১২ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা। খবর রয়টার্সের। দেশটির দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা সংস্থার মুখপাত্র মার্ক টিম্বাল জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ভ্যামকোর আঘাতে ২২ জন মারা গেছেন কাগায়ান অঞ্চলে, ১৭ জন দক্ষিণাঞ্চলীয় লুজন প্রদেশে, আটজন ম্যানিলায় এবং ২০ জন অন্য অঞ্চলগুলোতে। এসময় অন্তত ২১ জন আহত হয়েছেন বলেও জানান এ কর্মকর্তা। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ধান ও ভ্ট্টুা উৎপাদনের জন্য পরিচিত কাগায়ান অঞ্চলে রোববারও প্রায় ১২ লাখ মানুষ পানিবন্দী রয়েছেন। সাম্প্রতিক দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া এবং স্থানীয় একটি বাঁধের পানির তোড়ে এলাকাটিতে প্রায় দোতলা সমান বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। এ থেকে বাঁচতে অনেকেই পরিবার নিয়ে বাসার ছাদে আশ্রয় নিয়েছেন। টিম্বালের দেয়া তথ্যমতে, আচমকা বন্যায় দেশটির কৃষিখাতের ক্ষতি হয়েছে অন্তত ১২০ কোটি পেসো (২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। আর অবকাঠামোগত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক ৪৭ কোটি পেসো। এ দুর্যোগে অন্তত ২৬ হাজার ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। চলতি বছর ফিলিপাইনে আঘাত হানা ২১তম ঝড় ভ্যামকো। গত বুধবার রাতে দেশটির লুজন প্রদেশে তা-ব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড়টি। এর প্রভাবে দেশটির রাজধানীতে বছরের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। এর কিছুদিন আগেই ফিলিপাইনে আঘাত হেনেছিল বছরের সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড় টাইফুন গনি। এর তা-বেও লুজন প্রদেশে অনেক মানুষ প্রাণ হারান।