যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচন: প্রথম ভোট নিউ হ্যাম্পশায়ারে

12

রীতি অনুযায়ী মধ্যরাতের পরপরই ভোট দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নির্ধারিত দিনের সূচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা সীমান্ত সংলগ্ন নিউ হ্যাম্পশায়ার রাজ্যের ছোট শহর ডিক্সভিল নচ। ৩ নভেম্বর প্রথম প্রহরে হেমলেট এলাকার বালসামস হোটেলের হেল হাউসে ডিক্সভিল নচের ভোটাররা তাদের রায় জানান বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। তাৎক্ষণিকভাবে সেখানকার ফলাফলও ঘোষিত হয়েছে। ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এ কেন্দ্রে পড়া ৫টি ভোটের সবগুলোই পেয়েছেন; ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প পাননি একটিও। ডিক্সভিল নচের রীতি অনুযায়ী, ভোটের দিন মধ্যরাতে কেন্দ্র খোলার পরপরই প্রাপ্তবয়স্ক ভোটাররা বালসামস হোটেলের ‘ব্যালট রুমে’ জড়ো হন। সবার ভোট দেওয়া শেষে গণনা হয় ব্যালট, এরপর ফল জানিয়ে দেওয়া হয়। তবে এ কেন্দ্রের ফলের সঙ্গে সবসময় রাজ্যে কারা সবচেয়ে বেশি ইলেকটোরাল ভোট পেতে যাচ্ছে কিংবা কে হতে যাচ্ছেন পরবর্তী প্রেসিডেন্ট, তার আভাস পাওয়া যায় না। ২০১৬ সালের নির্বাচনে এ কেন্দ্রে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন জিতেছিলেন; নিউ হ্যাম্পশায়ারে সেবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে ট্রাম্প সামান্য ব্যবধানে হেরে গিয়েছিলেন। যদিও অন্য রাজ্যগুলোর ভোট তাকে ঠিকই হোয়াইট হাউসে পৌঁছে দিয়েছিল। ডিক্সভিল নচের কাছাকাছি মিলসফিল্ডেও মধ্যরাতের পরপরই ভোট হয়েছে। সেখানে ট্রাম্প বাইডেনকে ১৬-৫ ভোটে হারিয়েছেন বলে জানিয়েছে সিএনএন। এই দুটি শহর তাদের ঐতিহ্য ধরে রাখতে পারলেও প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগ থেকে হার্টস লোকেশন সে পথে হাঁটেনি। কেন্দ্রটির ৪৮ জন ভোটারকে এবার দিনের বেলায় ভোট দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা। সময়ের পার্থক্য থাকায় যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে আলাদা আলাদা সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু ও শেষ হয়। দেশটিতে এবার ভোটের নির্ধারিত দিনের আগেই রেকর্ড প্রায় ১০ কোটির মতো আগাম ভোটও পড়েছে। ডাকযোগে ভোটের আধিক্যের কারণে এবার ভোট গণনায় বেশ সময় লাগতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন।