চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বায়ার্ন, লিভারপুলের জয়, ড্র করেছে রিয়াল মাদ্রিদ

12

টানা দ্বিতীয় জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শুরুটা দারুন করেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ। অন্যদিকে শেষ মুহূর্তে কাসেমিরোর গোলে বরুসিয়া মচেনগ্লাডবাখের সাথে ২-২ ব্যবধানের ড্র নিয়ে কোনরকমে পরাজয় রক্ষা করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। লিভারপুল ও ম্যানচেস্টার সিটি মৌসুমের প্রথম দুই ম্যাচে জয় নিশ্চিত করে সম্ভাব্য ৬ পয়েন্ট করে অর্জন করে নিজ নিজ গ্রুপের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। রাশিয়ান রাজধানী মস্কোতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে জসুয়া কিমিচের গোলে লোকোমোটিভ মস্কোকে ২-১ গোলে পরাজিত করে গ্রুপ-এ’র শীর্ষস্থানেই থাকলো বায়ার্ন।

এর আগে সীমিত সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত ম্যাচের ১৩ মিনিটে লিঁও গোয়েতজার গোলে এগিয়ে গিয়েছিল জার্মান জায়ান্টরা। কিন্তু বিরতির পর লোকোমোটিভের হয়ে সমতা ফেরান এ্যান্টন মিরানচাক। গত সপ্তাহে মিরানচাকের জমজ ভাই আলেকসেই আটালান্টার হয়ে গোল করেছিলেন। জাভি মার্টিনেজের পাস থেকে ম্যাচ শেষের ১১ মিনিট আগে লো শটে কিমিচ বায়ার্নের জয় নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রেকর্ড ১৩তম জয় তুলে নিল বেভারিয়ান্সরা। ম্যাচ শেষে কিমিচ স্বীকার করেছে এই জয় নিশ্চিত করতে বায়ার্নকে দারুন কষ্ট করতে হয়েছে।

এই গ্রুপে দিনের আরেক ম্যাচে এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ পিছিয়ে থেকেও সালজবার্গের বিপক্ষে ৩-২ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে। ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে মার্কোস লরেন্তের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল এ্যাথলেটিকো। ৪০ মিনিটে সালজবার্গের পক্ষে সমতা ফেরান ডোমিনিক জোবোসালি। ৪৭ মিনিটে ফিলিপের আত্মঘাতি গোলে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। ৫২ মিনিটে হুয়াও ফেলিক্স এ্যাথলেটিকোর হয়ে সমতা ফেরানোর পর ম্যাচ শেষের পাঁচ মিনিট আগে দলের জয় নিশ্চিত করেন। জার্মানীতে গ্রুপ-বি’তে আরো একটি পরাজয়ের হাত থেকে কোনমতে রক্ষা পেয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদ।

ছয় দিন আগে শাখতার দোনেৎস্কর কাছে ঘরের মাঠে ৩-২ গোলের পরাজয় দিয়ে মৌসুম শুরু করেছিল জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা। গ্লাডবাখের হয়ে দুই গোল করেছেন ফরাসি এ্যাটাকার মার্কোস তুরাম। দুই অর্ধে তার দেয়া দুই গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু ৮৭ মিনিটে কাসেমিরোর এসিস্টে করিম বেনজেমা প্রথমে এক গোল পরিশোধ করার পর ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার নিজেই ইনজুটি টাইমে গোল করে মাদ্রিদকে এক পয়েন্ট উপহার দেন। ম্যাচ শেষে জিদান বলেছেন, ‘আমরা যদি এভাবে খেলা চালিয়ে যাই তবে সবকিছুই সঠিক পথে থাকবে এবং আমি নিশ্চিত এভাবেই আমরা সব ম্যাচে জয়ী হতে পারবো।’ গ্রুপের আরেক ম্যাচে ইটালিয়ান জায়ান্ট ইন্টার মিলানের সাথে ঘরের মাঠে গোলশুন্য ড্র করে টেবিলের শীর্ষস্থান দখল করেছে শাখতার।

মিলান ও গ্লাডবাখের থেকে দুই পয়েন্ট এগিয়ে বি-গ্রুপের শীর্ষস্থানে রয়েছে ইউক্রেনের জায়ান্টরা। সি-গ্রুপে ম্যানচেস্টার সিটি মার্শেইকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় নিশ্চিত করে পূর্ণ ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। দিনের আরেক ম্যাচে ফ্যাবিও ভিয়েরা ও সার্জিও অলিভিয়েরার গোলে অলিম্পিয়াকোসকে ২-০ ব্যবধানে পরাজিত করে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছে পোর্তো। গত সপ্তাহে আয়াক্সের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয় দিয়ে মৌসুম শুরু করা লিভারপুল কাল ড্যানিশ চ্যাম্পিয়ন মিডজিল্যান্ডকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছে।

এ্যানফিল্ডে দর্শকশুন্য ডি-গ্রুপের এই ম্যাচটিতে যদিও স্বাগতিকদের খুব একটা ছন্দে দেখা যায়নি। প্রথমার্ধ গোলশুন্য থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধের ৫৫ মিনিটে দিয়োগো জোতা দারুন ফিনিশিংয়ে লিভারপুলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন। স্টপেজ টাইমে মোহাম্মদ সালাহর পেনাল্টিতে লিভারপুলের জয় নিশ্চিত হয়। এই ম্যাচে মূল একাদশ থেকে রেড বস জার্গেন ক্লপ বিশ্রাম দিয়েছিলেন সালাহ, সাদিও মানে ও রবার্তো ফিরমিনোকে। ম্যাচের ৩০ মিনিটে কুঁচকির ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ত্যাগ করেন ফ্যাবিনহো।

আর এতেই রক্ষনভাগ নিয়ে নতুন করে দু:শ্চিন্তায় পড়লেন ক্লপ। ম্যাচ শেষে ক্লপ বলেছেন, ‘আজকের রাতটা বেশ কঠিন ছিল। এখানে ভাল ও খারাপ দুটো সময়ই কেটেছে। তারপরেও ২-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়াটা সত্যিই দারুন এক অনুভূতি।’ এই গ্রুপের আরেক ম্যাচে দুই গোলে পিছিয়ে পড়েও শেষ পর্যন্ত আয়াক্সের সাথে ঘরের মাঠে ২-২ গোলে ড্র করেছে আটালান্টা।