গোল্ডেন বয় পুরস্কারের দৌড়ে এগিয়ে আছেন হালান্ড, সানচো, ডেভিস, গ্রীনউড

6

২০২০ সালের গোল্ডেন বয় পুরস্কারের তালিকায় শীর্ষ ৪০জনের মধ্যে এগিয়ে আছেন বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের দুই তরুন আর্লিং হালান্ড ও জেডন সানচো। তাদের সাথে আরো আছেন বায়ার্ন মিউনিখের আলফোনসো ডেভিস ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ম্যাসন গ্রীনউড। আয়াক্সের হয়ে দুর্দান্ত পারফর্ম করা যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় দলের ১৯ বছর বয়সী রাইট-ব্যাক সার্জিনো ডেস্টও তালিকার উপরের দিকেই রয়েছেন। প্রতি বছর ইটালিয়ান দৈনিক টুটোস্পোর্ট ইউরোপের বর্ষসেরা তরুন খেলোয়াড়ের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেয়। গত বছর এই পুরস্কার জয় করেছিলেন এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড হুয়াও ফেলিক্স। এর আগে ইউরোপের গোল্ডেন বয় হয়েছিলেন লিওনেল মেসি, ওয়েইন রুনি ও কিলিয়ান এমবাপ্পে। জানুয়ারিতে এফসি সালজবার্গ থেকে ডর্টমুন্ডে যোগ দেন হালান্ড। দারুন একটি মৌসুম শুরু করে সালজবার্গের হয়ে ২২ ম্যাচে করেন ২৮ গোল।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়া অস্ট্রিয়ান ক্লাবটির হয়ে করেছিলেন আট গোল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের অভিষেক ম্যাচেই হালান্ড হ্যাটট্রিক করার কৃতিত্ব দেখান। এমনকি প্রথম পাঁচটি ম্যাচের প্রতিটিতেই গোল করেছেন। এক মৌসুমে টিনএজার হিসেবে সর্বোচ্চ গোলর কৃতিত্ব অর্জণ করেন। ডর্টমুন্ডে যোগ দেবার পরেও ২০ বছর বয়সী এই তরুন স্ট্রাইকারের ফর্ম বজায় ছিল। লুসিয়ান ফাভরের দল অগাসবার্গের বিপক্ষে বুন্দেসলিগায় ৩-১ গোলে পিছিয়ে থেকেও হালান্ডের কল্যাণে ৫-৩ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। সব ধরনের প্রতিযোগিতায় ২৯ গোল করে হালান্ড মৌসুম শেষ করেছেন।

হালান্ডের বরুসিয়া সতীর্থ সানচো একটি দুর্দান্ত মৌসুম কাটিয়েছেন। গত মৌসুমে তিনি সিনিয়র দলের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিকের দেখা পেয়েছেন। অসাধারণ পারফরমেন্সের কারণে ট্রান্সফার মার্কেটে সবচেয়ে বেশী আকর্ষণীয় তরুন খেলোয়াড়ে পরিনত হন সানচো। ইতোমধ্যেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তার প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করেছে। গত আসরে বুন্দেসলিগা, জার্মান কাপ ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ে বায়ার্নের হয়ে গুরুত্বপূর্ন অবদান রেখেছেন কানাডিয়ান জাতীয় দলের ডেভিস। এদিকে ইউনাইটেডের আক্রমনভাগে নিজেকে অপরিহার্য্য করে তুলেছেন গ্রীনউড। আগের মৌসুমে করেছেন ১৭ গোল। করোনাভাইরাসের কারণে ডাচ মৌসুম বন্ধ হয়ে যাবার আগে আয়াক্সের হয়ে মূল দলে নিয়মিত ছিলেন ডেস্ট। এই সময় তিনি খেলেছেন ২০টি লিগ ম্যাচ।