দুই বোনের কাহিনি ‘ডলি কিটি অউর ওহ চমকতে সিতারে’

5

মেয়েদের যৌন আকাক্সক্ষা পুরুষের সমকক্ষ, কখনও-বা তার চেয়ে বেশি। কিন্তু পিতৃতান্ত্রিক সমাজ তা মানতে চায় না। অগত্যা মেয়েরা ইচ্ছাগুলোকে অবদমন করে। কিন্তু ইচ্ছে তো অত সহজে মরে না! মনের গহন কাননে সে নিজের মতো ডালপালা ছড়ায়। সেই ডালেই কখনও ফলে ফ্যান্টাসির মরীচিকা, কখনও যৌনমিলনের অদম্য তৃষ্ণা, কখনও-বা বিরুদ্ধাচরণের স্পর্ধা। এমনই গল্প নিয়ে ২০১৭ সালে পরিচালক অলংকৃতা শ্রীবাস্তব নির্মাণ করেছিলেন ‘লিপস্টিক আন্ডার মাই বুরখা’। ছবিটি নিয়ে প্রচুর বিতর্কও হয়েছিল। তিন বছর পর বলিউডের এই নারী পরিচালক নির্মাণ করেছেন ‘ডলি কিটি অউর ওহ চমকতে সিতারে’।
দুই বোনের কাহিনি নিয়ে নির্মিত হয়েছে এই ছবিটি। ছবির পোস্টার এরইমধ্যে অনেক দর্শকের মনেই আগ্রহের জন্ম দিয়েছে। ছবিতে নারীকেন্দ্রিকতার পোস্টার দেখেই আন্দাজ করা যায়। দুই কাজিন ডলি ও কাজল। তারা আপন বোন না হলেও আপনের চেয়ে একে অন্যকে বেশি মনে করে। দু’জন দু’জনের সবচেয়ে গোপন কথাও জানে। নয়াদিল্লির একটি বাসায় স্বামী আর সন্তানকে নিয়ে ডলির বসবাস। সে একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। স্বামী-স্ত্রী দু’জনের পয়সা জমিয়ে নতুন ফ্ল্যাট কিনেছে। অন্যদিকে, কাজল একটি অনলাইন ডেটিং অ্যাপভিত্তিক প্রতিষ্ঠানে চাকরি নেয়। ফলে প্রতিনিয়ত তাকে নতুন নতুন ছেলের সঙ্গে ফোনে সঙ্গ দিতে হয়। দু’জনেরই রয়েছে আলাদা আলাদা গোপন কথা। এমনই গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ছবিটি।

এতে কঙ্কনা সেনশর্মা ও ভূমি পেড়নেকরকে দুই বোনের চরিত্রে দেখা যাবে। চরিত্র নির্বাচনের জন্য শুরু থেকেই সমালোচকদের বাহবা পেয়েছেন ভূমি পেড়নেকর। তার অভিনীত চরিত্রগুলো ভারতীয় সমাজে নারীদের প্রতি অবহেলার বিরুদ্ধে বিশেষ বার্তা দিয়ে আসছে। ভূমির প্রথম ছবি ‘দম লাগা কে হেইসা’য় তিনি করেছেন এমন এক মেয়ের চরিত্র, যে অতিরিক্ত ওজন থাকার কারণে বিদ্রুপের শিকার হয়। এ ছাড়া ‘টয়লেট এক প্রেমকথা’য় দিয়েছেন স্বাস্থ্যসচেতনতার বার্তা, গেল বছর ‘বালা’য় তিনি হাজির হয়েছিলেন তথাকথিত ‘কালো মেয়ে’ হিসেবে। এবারের ‘ডলি কিটি অউর ওহ চমকতে সিতারে’তে তাকে দেখা যাবে নারীকে নিয়ে সমাজের প্রচলিত সব ধ্যানধারণার বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে। ফলে বলা যায়, ভূমি করেছেন আরও এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া চরিত্রে অভিনয় করেছেন। শুক্রবার মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিটির অংশ হতে পেরে দারুণ খুশি ভূমি। তিনি বলেন, আমাদের সমাজে ‘ভালো মেয়ে’, ‘খারাপ মেয়ে’ বলে যে ধারণা আছে, সেটা এই চরিত্রটি তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেবে।

এটা আসলে সমাজে নারী সম্পর্কে প্রচলিত সব ট্যাবুকে চ্যালেঞ্জ করে। ছবিতে ভূমির চাচাতো বোন ডলি চরিত্র করেছেন ভারতের জাতীয় পুরস্কার পাওয়া বাঙালি অভিনেত্রী কঙ্কনা সেনশর্মা। তার সঙ্গে কাজ করা নিয়েও উচ্ছ্বসিত ভূমি, ‘দর্শকরা সেভাবে পর্দায় দুই বোনের গল্প দেখেনি, সাধারণ ছবিতে দুই বোনের ঝগড়াই দেখানো হয়, আমরা বিষয়টি একেবারেই অন্যভাবে তুলে ধরেছি। এটা এমন একটা সিনেমা, যেখানে দুই নারী ঠিক করে তারা তাদের মতো করে জীবন কাটাবে।’ ভূমি পেড়নেকর বরাবরই স্বাধীনচেতা। আর সেই মানসিকতাই তিনি অন স্ট্ক্রিনেও বজায় রাখতে চান। সম্প্রতি ভূমি বলেছেন, ‘অনস্ট্ক্রিন আমি মেয়েদের কীভাবে তুলে ধরছি, সেটা গুরুত্বপূর্ণ। সিনেমার মাধ্যমে বহু লোকই প্রভাবিত হন। আর ছেলেমেয়েরাই যেসব ক্ষেত্রে সমান, সেই মেসেজটাও আমরা সিনেমার মাধ্যমে প্রচার করতেই পারি।’