’পেঁয়াজের বাজার এক মাসের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে আসবে’

18

হাটবাজারে পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির অবৈধ মজুত রোধ এবং স্বাভাবিক সরবরাহ নিশ্চিত করতে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক।
সভায় উপস্থিতি ছিলেন- বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকিউল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) এস.এ.এম. ফজল-ই-খুদা, চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মো. এরফান আলী, জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক জহিরুল ইসলাম, জেলা মার্কেটিং অফিসার নুরুল ইসলাম, সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. তৌফিকুর রহমানসহ জেলার আমদানিকারক, পাইকারি ও খুচরা ব্যাবসায়ীগণ।
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক ব্যবসায়ীদের বলেন- কোনোভাইে পেঁয়াজসহ অন্যান্য দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি করবেন না। কোথা থেকে এবং কার কাছ থেকে পেঁয়াজ ক্রয় করছেন তার ইনভয়েস সঙ্গে রাখবেন। যে কোনো সময় ম্যাজিস্ট্রেট দেখতে চাইলে যেন দেখাতে পারেন সে ব্যবস্থা রাখবেন। ভোক্তাদের একসঙ্গে ১ কেজির অধিক পেঁয়াজ না কিনতে আহ্বান জানিয়ে জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক বলেন- বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এই মতবিনিময় সভা ভোক্তাদের মাঝে ইতিবাচক সাড়া ফেলবে।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসন আয়োজিত সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আবুল কালাম আজাদ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন- আপনারা সৎভাবে ব্যবসা করুন, সরকার ও প্রশাসন আপনাদের পাশে আছে। কিন্তু অযৌক্তিকভাবে কেউ পেঁয়াজ মজুত করে বাজারে সংকট সৃষ্টি করবেন না। কেননা প্রচুর পেঁয়াজ মজুত রয়েছে। আপনারা ন্যায্য দামে পেঁয়াজ ক্রয় করে ন্যায্য দামে বিক্রি করবেন। ভোক্তাদের মনে অযথা আতঙ্কা সৃষ্টি করবেন না। বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে টিসিবির মাধ্যমেও পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আগামী এক মাসের মধ্যে পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক হয়ে আসবে।
এদিকে সোমবার বিকেলে নিউমার্কেট এলাকার কয়েকটি মুদি দোকানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৮-৪০ টাকা এবং দেশী পেয়াঁজ ৬২-৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।