রোমাঞ্চকর ম্যাচে লিভারপুলের ৭ গোলে জয়

7

চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল মেলে ধরল দাপুটে ফুটবলের পসরা। ১৬ বছর পর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ফেরা লিডস ইউনাইটেডও উপহার দিল দারুণ আগ্রাসী ফুটবল। মোহামেদ সালাহর হ্যাটট্রিকে শেষ পর্যন্ত রোমাঞ্চকর জয় দিয়ে লিগের মুকুট ধরে রাখার অভিযান শুরু করেছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। অ্যানফিল্ডে শনিবার সাত গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচটি ৪-৩ ব্যবধানে জিতেছে লিভারপুল। জমজমাট প্রথমার্ধেই হয় পাঁচ গোল, দ্বিতীয়ার্ধে দুটি। সালাহর হ্যাটট্রিকের দুটি গোল পেনাল্টি থেকে, লিভারপুলের অন্য গোলদাতা ভার্জিল ফন ডাইক। জ্যাক হ্যারিসন, প্যাটট্রিক ব্যামফোর্ড ও মাতেউসের গোলে তিনবার সমতা ফেরায় লিডস। ২০০৪ সালের পর প্রিমিয়ার লিগে ফেরা লিডসকে শুরুতেই চেপে ধরে লিভারপুল।

চতুর্থ মিনিটে আদায় করে নেয় গোল। সালাহর শট রবিন কোচের হাঁটু ছুঁয়ে হাতে লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে দলকে এগিয়ে নেন মিশরের ফরোয়ার্ডই। লিভারপুলের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টানা চার লিগে উদ্বোধনী দিনে গোল করলেন সালাহ। প্রিমিয়ার লিগে যে কোনো ক্লাবের হিসাবে টেডি শেরিংহ্যামের (১৯৯২-৯৩ থেকে ১৯৯৫-৯৬) পর দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে এ কীর্তি গড়লেন তিনি। লিগ চ্যাম্পিয়নদের পাল্টা জবাব দিতে দেরি নেয়নি গতিময় ফুটবল খেলা লিডস। দ্বাদশ মিনিটে নিজেদের অর্ধ থেকে ক্যালভিন ফিলিপসের লম্বা করে বাড়ানো বল ধরে দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দারুণ শটে সমতা ফেরান হ্যারিসন। তিন মিনিট পর ৪০ গজ দূর থেকে সাদিও মানে জালে বল পাঠালেও অফসাইডের কারণে গোল হয়নি। ২০তম মিনিটে রবার্টসনের কর্নারে ফন ডাইকের হেড জাল খুঁজে নিলে ফের এগিয়ে যায় ক্লপের দল।

২৭তম মিনিটে বড় বাঁচা বেঁচে যায় লিডস। রবার্টসনের ক্রস বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়াতে বসেছিলেন পাসকেল। গোলরক্ষক শেষ মুহূর্তে কোনোমতে রক্ষা করেন। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে উত্তেজনা ছড়ানো ম্যাচে ৩০তম মিনিটে প্যাটট্রিক ব্যামফোর্ডের গোলে সমতায় ফেরে লিডস। এ গোলে অবশ্য ফন ডাইকের দায় বেশি। হ্যারিসনের বাড়ানো বল বিপদমুক্ত না করে ব্যামফোর্ডের পায়ে তুলে দিয়েছিলেন তিনি। তিন মিনিট পর ডি-বক্সের ভেতর থেকে বাঁ পায়ের উঁচু শটে স্কোরলাইন ৩-২ করেন সালাহ। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে সতীর্থের আড়াআড়ি ক্রস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জর্জিনিয়ো ভেইনালডামের শট ঝাঁপিয়ে পড়ে ফিরিয়ে ব্যবধান বাড়তে দেননি লিডস গোলরক্ষক।

৬১তম মিনিটে সালাহর সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়া করে উড়িয়ে মেরে হতাশ করেন সাদিও মানে। দারুণ এক গোলে ৬৬তম মিনিটে ফের ম্যাচ জমিয়ে তোলে মার্সেলো বিয়েলসার দল। কস্তার কাছ থেকে ফিরতি বল আলতো ফ্লিকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ভলিতে আলিসনকে পরাস্ত করেন পোলিশ মিডফিল্ডার মাতেউস। ৭৯তম মিনিট ফন ডাইক পেট নিয়ে বল রিসিভ করে পরে ভলিতে জাল খুঁজে নিলেও গোল হয়নি। লিভারপুলের কার্টিস জোন্স রবিনকে ফাউল করেছিলেন আগেই। শেষ দিকে ডি-বক্সে ফাবিনিয়োকে রদ্রিগো ফাউল করলে ম্যাচে দ্বিতীয় পেনাল্টি পায় লিভারপুল।

সফল স্পট কিকে হ্যাটট্রিক পূরণের সঙ্গে দলকে এগিয়ে নেন সালাহ। এর আগে তিনবার সমতা ফেরানো লিডস ৮৮তম মিনিটে হজম করা গোল আর শোধ করতে পারেনি। সালাহর হ্যাটট্রিকে তিন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল। শনিবার লিগের প্রথম ম্যাচে আলেকসঁদ লাকাজেত, গাব্রিয়েল ও পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াংয়ের গোলে ফুলহ্যামের মাঠ থেকে ৩-০ ব্যবধানের জয় নিয়ে ফিরে আর্সেনাল।