আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নেওয়ার অপেক্ষায় মামুনুল

10

সাধারণত জেমি ডের জাতীয় দলে সুযোগ পেয়ে থাকেন মামুনুল ইসলাম। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচগুলোতেও স্কোয়াডে ছিলেন। সে হিসেবে দলের ভাবনা-চিন্তার মধ্যে এখনও আছেন। কিন্তু তিনি নিজে এখন আর আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারকে দীর্ঘায়িত করতে চাইছেন না। পরবর্তী যে কোনও একটি ম্যাচ খেলেই আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এই মিডফিল্ডার। এই বছরই বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ আছে বাংলাদেশের। করোনাভাইরাসের প্রকোপ না থাকলে হয়তো আগেই অবসর নেওয়া হয়ে যেত মামুনুলের।বললেন সেই কথাই, ‘এই বছর ঘরের মাঠে তিনটি ম্যাচ আছে। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে খেলতে হবে।

এর যে কোনও একটি ম্যাচের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানাবো। কোচের সঙ্গে এই বিষয়ে আমার কথা হয়েছে। গত মার্চে খেলা হলে হয়তো সেই সুযোগ হতো। কিন্তু এখন অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই।’ মামুনুলের শুরুটা ২০০৭ সালে এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ দিয়ে। এরপর সবমিলিয়ে প্রায় ৮০টির মতো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন। হঠাৎ অবসর নেওয়ার কারণ হিসেবে মামুনুল বললেন, ‘অনেক তো হলো, আর কতো। আমি অবসরে গেলে সেই জায়গায় একজন জুনিয়র খেলোয়াড়ের সুযোগ হবে। আমি চাইলে আরও এক বছর খেলা চালিয়ে যেতে পারতাম। কিন্তু খেলা চালিয়ে গেলে জুনিয়র খেলোয়াড়ের হয়তো সুযোগ হবে না।

তাই ভেবে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সামনের যে কোনও একটি ম্যাচ খেলেই বিদায় নেবো।’ আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানালেও ঘরোয়া ফুটবল খেলে যেতে চান আবাহনীর এই মিডফিল্ডার, ‘ঘরোয়া ফুটবলে আমার খেলার সুযোগ আছে। তাই এখান থেকে বিদায় নিচ্ছি না। যতদিন পারবো খেলে যাবো।’ জাতীয় দল থেকে অবসর নিতে পারলে তখন পরিবারকে আরও বেশি সময় দেওয়ার ইচ্ছে মামুনুলের, ‘অবসর নিতে পারলে তখন যে সময় পাবো, তা পরিবারকে দেওয়ার ইচ্ছা। একমাত্র ছেলে মোহাইমেনুল ইসলাম আজলনানকে ফুটবলের ব্যস্ত সূচির কারণে সেভাবে সময় দিতে পারি না। জাতীয় দল থেকে অবসর নিলে তখন সময় দেওয়ার সুযোগ হবে।’