নিজের ফাউন্ডেশনে সবার কাছে সহযোগিতা চাইলেন সাকিব

14

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারনে সারা বিশ্বের মানুষের জীবন এখন বিপন্ন। ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও। এমন অবস্থায় আবারো দেশের অসহায়-দুস্থদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। শুক্রবার সন্ধ্যার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’র পেইজ থেকে লাইভে এসে সকলের প্রতি এ আহবান জানান সাকিব। এ সময় নিজের ফাউন্ডেশন গঠনের গল্প শুনিয়েছে তিনি। গত ২৮ মার্চ সাকিবের ‘ফাউন্ডেশন’ গঠন করা হয়।
ভিডিওর ক্যাপশনে সাকিব লিখেন, ‘সবাইকে ধন্যবাদ আমাদের সঙ্গে যোগ দেয়ায়। আমি সত্যিই অভিভূত। আপনারা নিজেদের সাধ্যমতো দান করতে পারেন। আমি সবাইকে এগিয়ে আসার জন্য ধন্যবাদ দিতে চাই। আমরা একসঙ্গেই এই লড়াই জিতব।’
সাকিব লাইভে বলেন, ‘প্রথমে খেলাধুলাবিষয়ক ‘ফাউন্ডেশন’ করার চিন্তা ছিল। যেখানে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা নিয়ে কাজ করার ইচ্ছে ছিল। তবে এখনই এটা শুরুর চিন্তা ছিলনা। তবে করোনার কারণে এখনই শুরু করতে হয়েছে, যে কারণে সবকিছু গুছিয়ে উঠতে পারিনি। কিন্তু এই মহামারীর কারণে আসলে সব পরিস্থিতিই বদলে যায় এবং এই সময়ে ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে মানুষের সাহায্য কিংবা স্বাস্থ্যখাতে কোন সাহায্য করা যায় কি না- এই চিন্তাতে শুরু করা। সবাই সবার জায়গা থেকে সাহায্য করছে আমি নিশ্চিত। এই বিপদের সময়ে আমাদের দেশে, শুধু আমাদের দেশে নয় সব দেশেই এই বিপদটা এখন।
স্বাভাবিকভাবে অনেকেই বলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বলছে, কী কারণে মানুষ বাইরে যাচ্ছে। আমরা ঠিক জানছি না কী কারণে বা কতটা প্রয়োজনে বের হচ্ছে। যতক্ষণ পর্যন্ত জানছি না ততক্ষণ বলাটা খুব সহজ আমাদের জন্য, যারা স্বচ্ছল আছি। আমার মনে হয় এ ব্যাপারটা আমাদের সবারই চিন্তা করা উচিৎ। অনেকেই আছে আমি যদি বিশেষ করে ঢাকার কথাই বলি যে পরিমাণ বস্তি আছে, তারা তো ঘরের ভেতরেই সামজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারছে না। তারা বাইরে এটা কীভাবে মেনে চলবে? তাদের জন্য এটা বড় মুশকিল যারা একদিন বাইরে না গেলে খাবারটা আনতে পারে না। এ জায়গায়াটায় আমরা সবাই মিলে যদি সাহায্য করতে পারি, অবদান রাখতে পারি, আমার কাছে মনে হয় সাময়িকভাবে এই বিপদ থেকে উৎরাতে পারব।
বর্তমান করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় আমি সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশনকে সকলের দানের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছি। আপনারা দান করতে ভিজিট করতে পারেন www.sahfbd.com— এই ঠিকানায়। আমি বিশ্বাস করি, আমরা সবাই যদি সম্মিলিতভাবে টিম হিসেবে কাজ করি, তাহলে অবশ্যই এই বিপদ থেকে মুক্ত হতে পারব।’