করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকার প্রস্তাব ডসিসিআিইয়রে

মূল্যস্ফীতি ও ক্রমর্বধমান জীবনযাপনরে ব্যয় ববিচেনায় রখেে ২০২০-২১ র্অথবছরে ব্যক্তশ্রিণেি করদাতার করমুক্ত আয়রে সীমা আড়াই লাখ থকেে বাড়য়িে ৩ লাখ টাকা করার প্রস্তাব করছেে ঢাকা চম্বোর অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডসিসিআিই)।
গতকাল বুধবার রাজধানীর সগেুনবাগচিায় রাজস্ব ভবনে সংগঠনরে সভাপতি শামস মাহমুদ জাতীয় রাজস্ব র্বোডরে (এনবআির) সদস্য (করনীত) মো. আলমগীর হোসনেরে কাছে ২০২০-২১ র্অথবছররে জন্য ডসিসিআিইয়রে বাজটে প্রস্তাবনা পশে করনে।
ডসিসিআিই সভাপতি ব্যক্তশ্রিণেি করদাতার করমুক্ত আয়রে সীমা বৃদ্ধরি পাশাপাশি ব্যক্তশ্রিণেরি আয়কর র্সবনম্নি হার ১০ শতাংশ থকেে ৫ শতাংশে হ্রাস করার প্রস্তাব করনে। এছাড়া সংগঠনটি প্রগ্রসেভি হারে সকল স্তর থকেে করপোরটে করহার আগামী ২০২০-২১, ২০২১-২২ ও ২০২২-২৩ র্অথবছরে র্পযায়ক্রমে ৫, ৭ ও ১০ শতাংশ হারে হ্রাস এবং আগামী বাজটেে করপোরটে ডভিডিন্ডেরে আয়রে ওপর ২০ শতাংশরে পরর্বিতে ১০ শতাংশ কর নর্ধিারণরে প্রস্তাব করছে।ে
শামস মাহমুদ কর প্রক্রয়িা সহজীকরণ ও কররে আওতা বৃদ্ধরি জন্য সর্ম্পূণ অটোমটেডে অনলাইন ট্যাক্স রটর্িান জমা দয়োর ব্যবস্থা করে বলনে, এর ফলে দশেরে কর প্রদান ব্যবস্থা সহজ হবে এবং ব্যবসায় পরবিশে সূচক উন্নয়নে এটি র্কাযকরী ভূমকিা রাখব।ে একই সাথে তনিি বশ্বিব্যাপী ছড়য়িে পড়া করোনা ভাইরাসরে কারণে উদ্ভূত পরস্থিতিকিে ববিচেনায় নয়িে এ বছররে বাজটে প্রণয়নরে আহ্বান জানান, যাতে করে সরকার, সাধারণ জনগণ এবং বসেরকারি খাত এ অবস্থা উত্তরণে সহায়ক নীতমিালা ও রাজস্ব ব্যবস্থাপনার সুফল পতেে পার।ে
ডসিসিআিই ১৫ শতাংশ অথবা যে কোনো হারে ভ্যাট প্রদানরে পর কর রয়োতরে সুযোগ প্রদানরে প্রস্তাব করছে।ে এছাড়াও সংগঠনটি এসএমই উদ্যোক্তাদরে জন্য র্বাষকি র্টানওভাররে লমিটি ৩ কোটি টাকা থকেে বাড়য়িে ৪ কোটি টাকা নর্ধিারণ এবং পণ্যরে ভ্যালু এডশিন বা মুনাফা অনুপাতে ৪ শতাংশ ভ্যাট আরোপরে প্রস্তাব করনে। বদ্যিুতরে সঞ্চালন ও বতিরণরে আওতা এবং মান বৃদ্ধি করতে সঞ্চালন ও বতিরণরে বসেরকারি খাতরে অংশগ্রহণরে সুযোগ প্রদান এবং বদ্যিুৎ খাতরে আমদানি বকিল্প ব্যাকওর্য়াড লংিকজে শল্পিসমূহকে উৎসাহতি করতে বসেরকারি খাতকে সাবস্টশেন যন্ত্রপাতি এবং অন্যান্য অ্যাকসসেরজি উৎপাদনে কর অবকাশ সুবধিা দয়োর প্রস্তাব করনে।