বাচ্চু ডাক্তারের হাত ধরে অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে : স্মরণ সভায় বক্তারা

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, মহান মুক্তিযুদ্ধের চাঁপাইনবাবগঞ্জে অন্যতম সংগঠক, ভাষাসৈনিক, গণপরিষদ ও জাতীয় সংসদ সদস্য প্রয়াত ডা. আ.আ.ম. মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তারের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে নবাবগঞ্জ ক্লাব মিলনায়তনে স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার স্মৃতি পরিষদ।
আলোচকরা বলেছেন, মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার ছিলেন প্রকৃত রাজনীতিবিদ। তিনি দলীয় কর্মীদের সবসময় চোখে রাখতেন, খোঁজখবর নিতেন। তিনি ছিলেন কর্মীবান্ধব নেতা। শুধু তাই নয়, চাঁপাইনবাবগঞ্জের এমন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই যেখানে তাঁর অবদান নেই। তিনি ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের অভিভাবক, তিনি ছিলেন শিক্ষা, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়ামনস্ক মানুষ। তাঁর হাত ধরে অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এ সময় আলোচকরা তাঁর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান।
স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার স্মৃতি পরিষদের আহবায়ক লায়ন মোহাম্মদ আলী কামাল। বর্ষিয়ান এই আওয়ামী লীগ নেতার রাজনৈতিক জীবন ও আদর্শ তুলে ধরে আলোচনায় অংশ নেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা আবু নজর হোসেন খান বৃটিশ, সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মু. জিয়াউর রহমান, সহসভাপতি আলহাজ্ব রুহুল আমিন, আ.আ.ম. মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তারের কন্যা মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসি, মরহুমের ছেলে আওয়ামী লীগ নেতা মেসবাহুল শাকের জ্যোতি, শিশু শিক্ষা নিকেতনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মনিম উদ দৌলা চৌধুরী, অধ্যক্ষ সাইদুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা এমরান ফারুক মাসুমসহ অন্য নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মেসবাহুল হক বাচ্চ ডাক্তার স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হুদা অলক।
শেষে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা বিষয়ে কুইজ, চিত্রাঙ্কন ও নির্ধারিত আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।
এর আগে সকালে হক মঞ্জিলে কোরআনখানি ও দোয়া মাহফিল, মরহুমের কবর জিয়ারত এবং বিকেলে হক মঞ্জিলে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।