ফাইনালে উঠতে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে মুখোমুখি হচ্ছে রাজশাহী ও চট্টগ্রাম

প্রথম দল হিসেবে ইতোমধ্যে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে মুশফিকুর রহিমের খুলনা টাইগার্স। তাই খুলনার প্রতিপক্ষ হবার লক্ষ্যে বুধবার টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে মুখোমুখি হচ্ছে রাজশাহী রয়্যালস ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে ম্যাচ জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী দু’দলই। আজ মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ার শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে। লিগ পর্বে সব ম্যাচ শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দু’টিস্থান দখল করে খুলনা ও রাজশাহী। তৃতীয় স্থানে ছিলো চট্টগ্রাম। কিন্তু এই তিন দলেরই পয়েন্ট ছিলো সমান ১৬। তবে রান রেটে এগিয়ে শীর্ষে ছিলো খুলনা। এরপর ছিলো রাজশাহী ও চট্টগ্রাম। তাই প্রথম কোয়ালিফাইয়ারে খুলনার মুখোমুখি হয়েছিলো রাজশাহী। কিন্তু পাকিস্তানের বাঁ-হাতি পেসার মোহাম্মদ আমিরের আগুন ঝড়ানো বোলিং-এ প্রথম কোয়ালিফাইয়ারে বিধ্বস্ত হয় রাজশাহী। এতে ২৭ রানে ম্যাচ জিতে ফাইনালের টিকিট পেয়ে যায় খুলনা। খুলনাকে লড়াই করার প্ুঁজি এনে দিয়েছিলেন ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত। দু’বার জীবন পেয়ে ৫৭ বলে ৭৮ রানের দুর্দান্ত একটি ইনিংস খেলেন শান্ত। তার ব্যাটিং নৈপুণ্যেই শেষ পর্যন্ত ৩ উইকেটে ১৫৮ রানের লড়াই করার উপলক্ষ পায় খুলনা। কিন্তু ১৫৯ রানের টার্গেটে মুখ থুবড়ে পড়ে রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা। আমিরের ১৭ রানে ৬ উইকেটে ১৩১ স্কোরেই অলআউট হয় রাজশাহী। ৩৩ রানেই প্রথম ৬ উইকেট হারানোর পরও পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শোয়েব মালিকের ৫০ বলে ৮০ রানের ইনিংসে হারের ব্যবধান কমাতে পারে রাজশাহী। বিপিএলের ইতিহাসে তো বটেই নিজের টি-২০ ক্যারিয়ারে সেরা বোলিং ফিগার দাঁড় করান আমির। আর পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে থাকায় এলিমিনেটরে ঢাকা প্লাটুনের মুখোমুখি হয় চট্টগ্রাম। ৭ উইকেটে মাশরাফির ঢাকাকে হারায় চট্টগ্রাম। তাই এমন হারকে হতাশার বলছেন রাজশাহীর ম্যানেজার হান্নান সরকার। পাশাপাশি আমিরের প্রশংসাও করলেন তিনি, ‘খুবই হতাশার পারফরমেন্স ছিলো দলের । ব্যাটম্যানরা ভালো করতে পারেনি। আমির খুবই ভালো বোলিং করেছে। এই মাপের বোলাররা ভালো বল করবে এটাই স্বাভাবিক। আমাদের ইরফানও ভালো করেছে। তবে ব্যাটসম্যানরা খারাপ করেছে। তারপরও মালিক শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করেছিলো। দারুণ একটি ইনিংস খেলেছেন তিনি।’ ম্যাচ হারের ফলে চট্টগ্রামের চেয়ে মানসিকভাবে কিছুটা হলেও রাজশাহী পিছিয়ে রয়েছে বলে মনে করেন হান্নান, আজকে যেভাবে ম্যাচ হেরেছি, তাতে কিছুটা হলেও খেলোয়াড়রা মানসিকভাবে বিচলিত। আমার কাছে মনে হয় টি-২০ ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো- অল্প সময়ের খেলা, তিন ঘন্টার খেলা, এই সময়ের মধ্যে মোমেন্টামটা পাবার বিষয় রয়েছে। তবে এটা বলা যায়, চট্টগ্রাম মানসিকভাবে ভালো অবস্থায় রয়েছে, যেহেতু তারা জিতে এসেছে। আর আমরা হেরেছি। তবে টি-২০তে এমন উত্থান-পতন থাকে। তারপরও আজ আমরা সব কিছু নতুনভাবে চিন্তা করছি। আজকে ফুল স্পিরিট নিয়ে নামতে হবে। আশা করি, আমরা ফাইনাল খেলবো।’ আজ দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারের আগে অফিসিয়ালি আজ কোনো অনুশীলন করে নি রাজশাহী ও চট্টগ্রামের খেলোয়াড়রা। তবে ঐচ্ছিক অনুশীলন করেছেন কিছু খেলোয়াড়। লিগ পর্বের শেষদিকে এসে একে অপরের মুখোমুখি হয় রাজশাহী ও চট্টগ্রাম। প্রথম মোকাবেলায় চট্টগ্রাম ৭ উইকেটে এবং পরের দেখায় ৮ উইকেটে জয় পায় রাজশাহী। তবে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী চট্টগ্রামের ম্যানেজার ফাহিম মুনতাসির সুমিত। তিনি বলেন, ‘রাজাশাহী খুবই ভালো দল। তাদের ব্যাটসম্যানরা ফর্মে রয়েছে। তবে পুরো আসরে আমরাও ভালো পারফরমেন্স করেছি। কিন্তু রান রেটের কারণে আমাদের তৃতীয় স্থানে থাকতে হলো। তাই দু’টি ম্যাচ বেশি খেলতে হয়েছে। তবে এলিমিনেটরে আমরা ভালো খেলেছি। এভাবেই খেলতে চাই। টুর্নামেন্টের মাঝে আমাদের কিছু খেলোয়াড় ইনজুরিতে পড়েছিলো। ইমরুল দু’টি ম্যাচ মিস করেছে। মাহমুদুল্লাহ অনেকগুলো ম্যাচ মিস করেছে। তবে এখন আমাদের দলের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই। আশা করছি, আমরা ফাইনাল খেলতে পারবো।’