মোশাররফ করিমকে কবি নজরুল ভেবে অত্যাচার

পাকিস্তানিরা একজন বাঙালীকে ধরে নিয়ে যায়, যার নাম কাজী নজরুল ইসলাম। ওরা ধরেই নেয় এই লোক কবি কাজী নজরুল ইসলাম। লোকটি অনেকবার বোঝানোর চেষ্টা করে সে কবি কাজী নজরুল ইসলাম নয়। কিন্তু ওরা সেটা বিশ্বাস করতে চায় না। পাকিস্তানের পক্ষে কবিতা লিখে দেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে তাকে। কিন্তু সে নজরুলের মতো কবিতা লিখতে পারে না। বাঁচার জন্য কাজী নজরুল মিথ্যা বলছে ভেবে তার ওপর অত্যাচার করতে থাকে পাকিস্তানিরা। সম্প্রতি এমনই গল্পের একটি মুক্তিযুদ্ধের নাটকে অভিনয় করেন ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম। নাটকটির নাম ‘নীল দংশন’। সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে লেখা জনপ্রিয় উপন্যাস ‘নীল দংশন’। উপন্যাসটির নাট্যরূপ দিয়েছেন মনি হায়দার। নাটকটি পরিচালনা করেছেন হাসান রেজাউল।

গত ২৭ ও ২৮ নভেম্বর রাজধানীর তিনশ ফিট এলাকায় নাটকটির শুটিং হয়েছে। এখন চলছে এডিটিংয়ের কাজ। এখানে মোশাররফ করিমের চরিত্রটি মর্মান্তিক। নাটকটি নিয়ে হাসান রেজাউল বলেন, ‘আমাদের সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের লেখা মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস থেকে নাটক নির্মাণ করলাম। কাজটা বড় চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমরা তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। নাটকটির শুটিংয়ের সময় মনে হয়েছে আমরা যেন সেই ১৯৭১ সালে ফিরে গেছি। মোশাররফ করিম ভাইসহ প্রত্যেকেই খুব ভালো অভিনয় করেছেন। আশা করি দর্শকদেরও ভালো লাগবে নাটকটি। আরও তরুণ প্রজন্মও নাটকটি দেখে জানবে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে।’ নাটকটিতে মোশাররফ করিম ছাড়াও অভিনয় করেছেন জুঁই করিম, রওনক হাসান, হাসান ত্যাইয়াব ইমাম ও একঝাঁক থিয়েটার কর্মী। শিগগিরই কোনো একটি চ্যানেলে প্রচার হবে ‘নীল দংশন’।

এর আগে সৈয়দ শামসুল হকের ‘একদিন অরণ্যে’ গল্প অবলম্বনে ‘মাউথ অর্গান’ নামে নাটক নির্মাণ করেছিলেন হাসান রেজাউল। প্রখ্যাত উপন্যাসিক জহির রায়হানের ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’ উপন্যাস থেকেও টেলিফিল্ম নির্মাণ করেছেন তিনি। এ ছাড়া সাহিত্যনির্ভর বেশ কিছু নাটক নির্মাণ করেছেন। এই নির্মাতার উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে আছে ‘চুমকী’, ‘বিপরীত তমসায়’, ‘ল্যাবরেটরি’, ‘আদর্শ লিপি’ ‘নীল রংধনু’, ‘এখন তুমি কেমন আছো’, ‘প্রেম তুমি আমি’, ‘জলছবি’ প্রভৃতি।