ওহাইয়োতে আবারো বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ৯

0

যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইয়োর ডেটনে বন্দুকধারীর গুলিতে নয়জন নিহত এবং ১৬ জন আহত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছে সেখানকার পুলিশ। স্থানীয় সময় রাত ১টায় শহরের ওরেগন অঞ্চলের একটি বারের বাইরে গোলাগুলির ঘটনার খবর পাওয়া যায়। স্থানীয়ভাবে প্রকাশিত খবরে বলা হচ্ছে, আহতদের আশপাশের বেশ কয়েকটি হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় বন্দুকধারীও মারা গেছেন বলে জানানো হচ্ছে। খবর বিবিসি বাংলার।
টেক্সাসের এল পাসো’তে গুলির ঘটনায় ২০ জন নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এই বন্দুক হামলার ঘটনাটি ঘটল।
সহকারী পুলিশ প্রধান ম্যাট কার্পার সাংবাদিকদের জানান, ওই সময় টহলরত পুলিশ কর্মকর্তারা বন্দুকধারীকে হত্যা করতে সক্ষম হন। “আমাদের বাহিনীর সদস্যরা এ ধরনের পরিস্থিতি সামলানোর জন্য প্রশিক্ষিত। আমরা ভাগ্যবান যে সেসময় টহলরত পুলিশ কাছাকাছি ছিল।”
ডেটন পুলিশের পক্ষ থেকে এক টুইটে বলা হয়, “গুলি শুরু হওয়ার পরপরই আমাদের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছান এবং দ্রুত ওই ঘটনার সমাপ্তি ঘটাতে সক্ষম হন।”
ওই টুইটে কর্তৃপক্ষ প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছেও ঘটনা উন্মোচনে সাহায্যের আবেদন করেছে।
সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ভিডিওতে গুলির শব্দ শোনা যায় এবং দলে দলে মানুষকে রাস্তা দিয়ে দৌড়াতে দেখা যায়। ধারণা করা হচ্ছে, ‘ই ফিফথ স্ট্রিটে’র নেড পেপার্স বারের বাইরে গুলির ঘটনাটি ঘটে।
জো উইলিয়ামস নামের এক ব্যক্তি জানান যে, গুলি চলার সময় তিনি কাছাকাছি একটি র‌্যাপ শোতে ছিলেন এবং হঠাৎ তাদের বের হয়ে যেতে বলা হয়। “আমি ভীষণ চমকে যাই। আমাদেরকে ওরেগন ডিস্ট্রিক্ট থেকে দূরে থাকতে বলা হয়। আমি যখন ঘটনাস্থলের পাশ দিয়ে যাই তখন অনেক পুলিশ এবং অ্যাম্বুলেন্স দেখি।”
নেড পেপার্সে ইনস্টাগ্রাম পেজে এবং পার্শ্ববর্তী একটি বারের ফেসবুক পেজে জানানো হয় যে, বারের কর্মীরা নিরাপদে আছেন।
ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই ই ফিফথ স্ট্রিট এবং ওয়েইন অ্যাভিনিউতে জরুরি সেবাদানকারী সংস্থারা জড়ো হয়। ঘটনাস্থলে এফবিআইয়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিও লক্ষ করা গেছে।