শিশুদেরকে বৃক্ষের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে হবে : এমপি জেসি

34

‘পরিকল্পিত ফল চাষ যোগাবে পুষ্টি সম্মত খাবার’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭ দিনব্যাপী ফলদ ও বনজ বৃক্ষমেলা শুরু হয়েছে। সোমবার বিকেলে এ মেলার উদ্বোধন করেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসি ইসলাম জেসি।
মেলা উপলক্ষে পুরাতন স্টেডিয়ামে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এ.কে.এম. তাজকির-উজ-জামানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিফতরের রাজশাহী অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক দেব দুলাল ঢালী, চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টি.এম. মোজাহিদুল ইসলাম, সামাজিক বন বিভাগ রাজশাহী বিভাগীয় সহকারী বন কর্মকর্তা আহম্মদ নিয়ামুর রহমান।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা। অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য দেন হর্টিকালচার সেন্টারের উপ-পরিচালক ড. মো. সাইফুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ অঞ্চলের সহকারী বন সংরক্ষক মো. মেহেদীজ্জামান।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুরাতন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ৭ দিনব্যাপী এ মেলার যৌথভাবে আয়োজন করে জেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও বন বিভাগ।
এবারের মেলায় ২৪টি স্টল রয়েছে। প্রতিটি স্টলে ছিল ফলদ, বনজ, ঔষধিসহ বিভিন্ন প্রকার ফলদ বৃক্ষের চারা ও কৃষি যন্ত্রপাতি।
উদ্বোধন শেষে মেলার প্রতিটি স্টল পরিদর্শন করেন প্রধান অতিথিসহ অন্য অতিথিরা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য জেসি বলেন, গাছ আমাদের ঝীবন বাঁচায়। তাই সবারই উচিত গাছ লাগানো। আমাদের উচিত কোনটি কোন বৃক্ষ সে সম্পর্কে বাচ্চাদেরকে জানানো। আমাদের প্রতিটি বাচ্চাকে প্রতিটি বৃক্ষের নাম জানাতে হবে। কোন সময় কোন ফল হয়, কোন সময় কোন ফল পাওয়া যায়। কোন ফলে কি গুণ রয়েছে তাও বাচ্চাদের জানানো দরকার। ৭ দিনের এ মেলায় বাচ্চাদের আনতে হবে এবং বৃক্ষগুলোর সাথে তাদের পরিচয় করিয়ে দিতে হবে। এমপি জেসি বলেন-আমাদের উচিত বাচ্চাদেরকে একটি করে বৃক্ষ সম্পর্কিত বই প্রদান করা।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার বলেন আমার মনে হয় এখনই সময় এসেছে। আমরা জেগে স্বপ্ন দেখি। আমি কৃষির লোককে অনুরোধ করব আপনারা আমাদের স্কুলের বাচ্চাদের বেশি করে আনবেন। তারা সবচেয়ে বড় ভুমিকা রাখবে তারা একটু জানুক কোন গাছে কি রয়েছে। সকাল বেলাতে একটি ক্লাস করিয়ে শিক্ষকগণ শিশুদেরকে মেলা আনতে পারেন। আসুন সবাই মিলে চেষ্টা করি আমাদের সন্তানদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য গ্রীন বাংলাদেশ গড়ার।