সাকিবের অনুপস্থিতিতে মোসাদ্দেক বাড়তি দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত

আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ দিয়ে দলে নিজের জায়গা আপাতত পাকা করে ফেলেছেন মোসাদ্দেক হোসেন। তরুণ এই অলরাউন্ডার মুখিয়ে আছেন নতুন চ্যালেঞ্জের জন্য। শ্রীলঙ্কায় ব্যাটে-বলে রাখতে চান আরও বেশি অবদান। সময়ের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতিতে পালন করতে চান বাড়তি দায়িত্ব।
নিজের ব্যাটিং পজিশন নিয়ে সন্তুষ্ট মোসাদ্দেক। সাকিবের অনুপস্থিতিতে টপ অর্ডারে ব্যাটিংয়ের কোনো পরিকল্পনা নেই তার। বৃহস্পতিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দলের অনুশীলন শেষে জানালেন, সুযোগ এলে সাত নম্বরে নিজেকে আরও ঝালিয়ে নিতে চান।
“বিশ্বকাপে বা আয়ারল্যান্ড সিরিজে যে জায়গাতে ব্যাটিং করেছি, আমার মনে হয় শ্রীলঙ্কাতেও সেখানে ব্যাট করতে হবে। ওখানটাতেই মনে হয় আমি সেট। এর বাইরে কিছু চিন্তা করছি না।”
“গত প্রিমিয়ার লিগ থেকে স্ট্রাইক রেটের প্রতি মনোযোগ দিয়েছিলাম। কারণ, জানতাম আমি যখন ব্যাটিং করতে নামবো তখন হয়তো এমন পরিস্থিতি পাবো যেখানে দ্রুত রান করতে হবে। আবার খারাপ পরিস্থিতি থাকলে আমাকে ভালো করে দলকে সামনে এগিয়ে নিতে হবে। ভালো পরিস্থিতি পেলে কি করতে হবে আর খারাপ পরিস্থিতিতে দলকে কিভাবে বাঁচাতে হবে, এই দুটি ব্যাপার নিয়ে কাজ করছি।”
সাকিব না থাকায় শ্রীলঙ্কায় ব্যাটিংয়ের চেয়ে বোলিংয়ে বেশি অবদান রাখতে হতে পারে। সব ভাবনা মাথায় রেখে নিজেকে প্রস্তুত করছেন মোসাদ্দেক।
“সাকিব ভাই না থাকায় বোলিং ডিপার্টমেন্টে হয়তো একটু বেশি সুযোগ আসতে পারে। হয়তো আর্লি বোলিংয়ে আসতে হতে পারে। অথবা একটু বেশি ওভার করার সুযোগ আসতে পারে। আমি অবশ্যই সেটি নিয়ে প্রস্তুত। যদি বেশি ওভার বোলিং করতে হয় তাহলে কি করবো, সেটি নিয়ে একটি পরিকল্পনা অবশ্যই মাথায় আছে। ব্যাটিং বা বোলিং যেটাতেই প্রয়োজন হোক, আমি আমার সেরাটা দিতে প্রস্তুত।”
বিশ্বকাপ শেষে শ্রীলঙ্কায় নতুন শুরুর দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ। অভিজ্ঞতার জন্য নিজেদের সিরিজে এগিয়ে রাখছেন তরুণ এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার।
“আমি আমার দিক থেকে বলবো যে, গড়পড়তা একটা বিশ্বকাপ আমরা পার করেছি। এখন যদি বিশ্বকাপ নিয়ে চিন্তা করতে যাই তাহলে অনেক বেশি কিছু হয়তো চলে আসবে। আবার চিন্তা না করলে কিছুই না। কারণ, জীবনে একটি বিশ্বকাপই সবকিছু না। এমন না যে বিশ্বকাপ শেষ মানে সবকিছু শেষ হয়ে গেছে।”
“আমাদের সামনে নতুন সিরিজ। নতুন শুরুর সুযোগ। অভিজ্ঞতার দিক থেকে আমরা বিশ্বের বেশিরভাগ দলের চেয়ে এগিয়ে। শ্রীলঙ্কার চেয়েও এদিকটায় এগিয়ে থাকবো আমরা।”