জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় একাডেমিক বিশ্বের পরিকল্পনা

সারাবিশ্বের হাজার হাজার বিশ্ববিদ্যালয় বুধবার জলবায়ুকে জরুরি ঘোষণা করে এর পরিবর্তন মোকাবেলায় জাতিসংঘের সাথে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে। এই প্রচেষ্টায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের শিক্ষার্থীদের কাজে লাগানোর কথাও বলেছে। খবর এএফপির।
বিশ্বের ছয়টি মহাদেশের সাত হাজারেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা ২০৩০ বা অন্ততপক্ষে ২০৫০ সাল নাগাদ কার্বন নিঃসরণে সমতার মাধ্যমে তা শূন্যে নামিয়ে আনার অঙ্গীকার করেন।
তারা জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে গবেষণা ও দক্ষতা বৃদ্ধি এবং পরিবেশ সংক্রান্ত শিক্ষার আরো ‘বাস্তবসম্মত’ পদক্ষেপ গ্রহণেরও অঙ্গীকার করেন।
জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক কর্মসূচির (ইউএনইপি) পরিচালক ইঞ্জার আন্ডারসেন এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘ভবিষ্যৎ রূপায়ণের জন্য আমরা কি শিক্ষা দিচ্ছি।’ এটি নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে মন্ত্রিপর্যায়ের এক বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়। তিনি আরো বলেন, ‘এতে জলবায়ু ও পরিবেশ সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জ বিষয়ে আরো পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য যুবসমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে। এই গুরুত্বপূর্ণ কাজে যুবসমাজের সরাসরি অংশগ্রহণ অত্যন্ত জরুরি।’
এ কর্মোদ্যোগে ১০ হাজারেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাক্ষর করবে এবং এ বছরের শেষ নাগাদ এ পরিকল্পনার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতি দেবে বলে এ উদ্যোগের নেতারা আশা করছেন। এ উদ্যোগের নেতৃত্ব দেয়ার কাতারে কেনিয়ার স্ট্রাথমোর বিশ্ববিদ্যালয়, চীনের তংজি বিশ্ববিদ্যালয়, ফ্রান্সের কেইডিজিই বিজনেস স্কুল, গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়, ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, সংযুক্ত আরব আমিরাতের জায়েদ বিশ্ববিদ্যালয় ও মেক্সিকোর গুয়াদালাজারা বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।