ইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

যুক্তরাষ্ট্র সোমবার ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি এবং সামরিক বাহিনীর প্রধানদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। তেহরানের ওপর চাপ জোরদারে দেশটি ইরানের ওপর নতুন এই অবরোধ আরোপ করল। এদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানকে হুঁশিয়ার করে বলেছে, তেহরান যুদ্ধ করতে চাইলে তাদেরকে ‘গুঁড়িয়ে’ দেয়া হবে। খবর এএফপির।
ওভাল অফিসে ইরানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক অর্থনৈতিক পদক্ষেপে স্বাক্ষর করে ট্রাম্প বলেন, ‘তেহরানের ক্রমবর্ধমান উস্কানিমূলক কর্মকা-ের কঠোর ও যথাযথ জবাব এটি।’
মার্কিন অর্থ বিভাগ জানায়, তারা ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাভেদ জারিফ এবং দেশটির এলিট সামরিক বাহিনী বিপ্লবী গার্ডের শীর্ষ আট কমান্ডারকে কালো তালিকাভুক্ত করবে।
জাভেদ জারিফ ২০১৫ সালে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর সাথে ইরানের পরমাণু চুক্তি করার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের একটি গোয়েন্দা ড্রোন ইরান গুলি করে ভূপাতিত করার পর এ দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরমে রূপ নেয়। ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যে এই উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিলেও একেবারে শেষ মুহূর্তে তিনি পিছু হটেন। এমন উত্তেজনাপূর্ণ পরিস্থিতিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের বিরুদ্ধে অচলাবস্থা নিরসনে সর্বসম্মতিক্রমে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে।
একইভাবে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব-আমিরাতও সংকটের ‘কূটনৈতিক সমাধানের’ আহ্বান জানিয়েছে।