মহাকাশযানের জ্বালানি চাঁদের বরফ থেকে!

পরবর্তী চন্দ্রাভিযানের জন্য ব্লু অরিজিনের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। চাঁদে যাওয়ার জন্য যে মহাকাশযানটি বানানো হবে সেটি চাঁদের বরফ থেকে পাওয়া জ্বালানি দিয়েই পুনরায় ভরা হবে বলে জানানো হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের বস্টনে জেএফকে স্পেস সামিট-এ কথা বলার সময় বেজোস বলেন, “আমরা এখন চাঁদের বিষয়গুলো জানি, অ্যাপোলো মিশনের সময় আমরা জানতাম না।”– খবর সিএনবিসি’র।
বেজোস আরও বলেন, অ্যাপোলো মিশনের সময় যে বিষয় জেনেছি তা হলো চাঁদের নীচের স্তরে পানীয় বরফের মজুদ রয়েছে।
“আমরা এই বরফ চাষ করতে পারি এবং এর থেকে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন বানাতে পারি এবং এর থেকে রকেটের জ¦ালানি তৈরি করতে পারি।”
“আমরা এই জ¦ালানি বাছাই করেছি কারণ আমরা জানি একদিন আমরা চাঁদের বুকে ওই মহাকাশযানে জ¦ালানি ভরবো চাঁদে পাওয়া পানীয় বরফ থেকে বানানো জ¦ালানি থেকেই।”
চাঁদে যাওয়ার জন্য ব্লু মুন নামে একটি মহাকাশযান বানিয়েছে ব্লু অরিজিন। কার্গোর পাশাপাশি বেশ কয়েকজন যাত্রী বহন করতে পারবে মহাকাশযানটি। বেজোস এর আগে আরও বলেছেন ২০২৪ সালে চাঁদে নভোচারী ফেরাতে নাসার পরিকল্পনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্লু মুন।
একসঙ্গে অনেকগুলো মহাকাশ ব্যবস্থা নিয়ে কাজ করছে ব্লু অরিজিন। ব্লু মুনের পাশাপাশি মহাকাশে ভ্রমণার্থী নেওয়ার লক্ষ্যে নিউ শেফার্ড রকেট এবং নিউ গ্লেন নামে একটি বিশাল রকেট বানাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।
নিউ গ্লেন রকেটের মাধ্যমে স্যাটেলাইট এবং অন্যান্য মহাকাশযান পাঠানোর লক্ষ্য রয়েছে ব্লু অরিজিনের।
প্রতি বছর অ্যামাজন শেয়ার বিক্রি করে ব্লু অরিজিনে একশ’ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি বিনিয়োগ করেন বেজোস।