রেডিও মহানন্দা আয়োজনে প্রজনন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি বিষয়ে সামাজিক সংলাপ

প্রজনন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি বিষয়ক সামাজিক সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৫-০৫-২০১৯) সকালে বারঘরিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ইউকেএইডের অর্থায়নে, আইপাস বাংলাদেশ এবং বিএনএনআরসির সহযোগিতায় সামাজিক সংলাপের আয়োজন করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একমাত্র কমিউনিটি রেডিও প্রতিষ্ঠান রেডিও মহানন্দা ৯৮.৮ এফএম।
সামাজিক সংলাপে বিএনএনআরসির প্রকল্প সমন্বয়কারী বিমল কান্তি কুরী বলেন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি সম্পর্কে সবার জানা প্রয়োজন। বিশেষ করে কিশোরীদের প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কে তাদের সঠিক ধারণা থাকতে হবে। আজকের কিশোরী, আগামী দিনের মা। এ সময় তিনি কিশোরীদের সঠিক মাত্রায় প্রোটিনযুক্ত খাবার খাওয়ার জন্য বলেন। তিনি আরো বলেন, মাসিক হওয়ার সময় শারীরিক সুস্থতার জন্য তাদের প্যাড পরিধান করতে হবে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার মো. আনোয়ারুল আজিম বলেন, যারা নবদম্পতি এবং সন্তান দেরিতে নিতে চান তারা দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি ইমপ্লান্ট নিতে পারেন। মহিলাদের জন্য অস্থায়ী দীর্ঘমেয়াদি ক্লিনিক্যাল পদ্ধতি হচ্ছে ইমপ্লান্ট যা একটি বা দুটি নরম চিকন ক্যাপসুল (দিয়াশলাইয়ের কাঠির চেয়ে ছোট) মহিলাদের হাতের কনুইয়ের উপরে ভিতরের দিকে চামড়ার নিচে স্থাপন করা হয়। যে কোনো সক্ষম দম্পতি এই পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন। তিনি বলেন, মাসিকের প্রথম ৫-৭ দিনের মধ্যে ইমপ্লান্ট নিতে হয় এবং শুধু প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডাক্তারের কাছে ইমপ্লান্ট নেয়া যায়। এই পদ্ধতিটি ৩ অথবা ৫ বছরের জন্য কার্যকর, এতে কোনো পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া নেই বললেই চলে। মো. আনোয়ারুল আজিম বলেন, এটি প্রসব-পরবর্তী পদ্ধতি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। সন্তান নেয়ার প্রয়োজন হলে এটি দ্রুত খুলে সন্তান ধারণ করা যায়। তবে এটি ব্যবহারের ফলে কারো কারো ক্ষেত্রে মাসিক অনিয়মিত হতে পারে। মাসিক বন্ধ হলে গর্ভসঞ্চার হয়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এসময় তিনি আইইউডি পদ্ধতি সম্পর্কে আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, যারা এ পদ্ধতি গ্রহণ করবেন দশ বছর পর্যন্ত সন্তান না নিয়ে থাকতে পারবেন তারা। সম্পূর্ণ ঝুঁকি ছাড়াই যৌন জীবনযাপন করতে পারবেন; কিন্তু তার গর্ভধারণ হবে না। মহিলাদের জন্য দীর্ঘমেয়াদি, অস্থায়ী ক্লিনিক্যাল পদ্ধতি হচ্ছে আইইউডি। এটি মহিলাদের জরায়ুতে স্থাপন করা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে কপার-টি ব্যবহার করা হয়। স্বাভাবিক প্রসবের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে অথবা সিজারিয়ান অপারেশনের সময় আইইউডি গ্রহণ করা যায়। আইইউডি ব্যবহার করতে কোনো সমস্যা মনে হলে যে কোনো সময়ে ক্লিনিক/স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে খুলে নেয়া যায়। তবে আইইউডি প্রয়োগের পর কখনো কখনো কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, প্রথম কয়েক মাস তলপেটে ব্যথা হতে পারে, মাসিকের পর নিয়মিত সুতা পরীক্ষা করতে ও এটি খোলা, ফলোআপের জন্য ক্লিনিকে যেতে হবে।
সামাজিক সংলাপে বারঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোহা. আবুল খায়ের ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড সদস্য জেসমিন খাতুন, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক পান্ডব কুমার সিংহসহ, স্থানীয় স্কুলশিক্ষক, ইমাম, কিশোরী ও নবদম্পত্তিরা উপস্থিত ছিলেন।