গত অর্থবছরে স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের আয় ১৪৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা

নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভায় জানানো হয় ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের ১৪৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা আয় হয়েছে। ব্যয় হয়েছে ৯৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। কমিটির সভাপতি মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তমের সভাপতিত্বে গত মঙ্গলবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় আরো জানানো হয়, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে মোট আমদানির পরিমাণ ২ কোটি ১ লাখ ৬৯ হাজার ৬৬৪ মেট্রিক টন এবং রপ্তানির পরিমাণ ৯ লাখ ৩৫ হাজার ৪৪২ মেট্রিক টন।
কমিটির সদস্য নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, শাজাহান খান, মো. মজাহারুল হক প্রধান, রণজিৎ কুমার রায়, মাহফুজুর রহমান, ডা সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, মো. আছলাম হোসেন সওদাগর এবং এস এম শাহজাদা সভায় অংশগ্রহণ করেন।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর সার্বিক কার্যক্রম, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) এর কর্মকা- এবং বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ (বাস্থবক) এর গৃহীত কার্যক্রম সম্পর্কে সভায় বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সভায় জানানো হয় যে, বেনাপোল স্থলবন্দরে যাত্রী চলাচলের সুবির্ধাথে একটি আন্তজার্তিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ও একটি আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাল নির্মাণ করা হয়েছে। টার্মিনালে ভারতে গমনকারী যাত্রীরা অবস্থান সুবিধা, নিরাপত্তা সুবিধা, মহিলা ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের জন্য বিশেষ সুবিধাসহ অবকাঠামো উন্নয়ন করা হয়েছে। সভায় আরো জানানো হয় যে, বিশ্ব কাস্টমস সংগঠনের পক্ষ থেকে ২০১৭ সালে এবং ২০১৯ সালে বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষকে সার্টিফিকেট অব মেরিট এওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে।
সভায় আরো জানানো হয় যে, জনগণের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২০০৯ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের ৪১টি বাণিজ্যিক নৌযান এবং ১২টি সহায়ক নৌযানসহ মোট ৫৩টি নৌযান নির্মাণ করে সার্ভিসে নিয়োজিত করা হয়েছে। এছাড়াও কমিটি নদী তীরবর্তী এলাকায় ওয়াকওয়ে নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।
নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়লের সচিবসহ মন্ত্রণালয় অধীনস্থ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন।