কংগ্রেসের কার্যক্রমে বাধা দেয়ায় ভেনিজুয়েলা সরকারের সমালোচনা গুয়াইদোর

জুয়ান গুয়াইদো কংগ্রেসের কার্যক্রম বানচালের চেষ্টা করায় ভেনিজুয়েলা সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন। প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর বিরুদ্ধে বিরোধীদলীয় নেতার সহযোগিতায় ব্যর্থ অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা চালানোর দুই সপ্তাহ পর মঙ্গলবার জাতীয় পরিষদে প্রবেশে বিরোধীদলীয় আইনপ্রণেতাদের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা বাধা দেয়ার পর তিনি এমন সমালোচনা করলেন। খবর এএফপির।
সহকারীরা জানান, কংগ্রেস ভবনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যদের পাশাপাশি পুলিশ ও সেবিন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা বিরোধী দলের নিয়ন্ত্রণে থাকা জাতীয় পরিষদে তাদের প্রবেশে বাধা দেয়। ভেনিজুয়েলায় সরকারবিরোধী বিক্ষোভ দমনে দেশটির বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ অনেক ক্ষেত্রে মানবতাবিরোধী অপরাধ ঘটিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এমন কথা বলার এবং এ ব্যাপারে তদন্তে আন্তর্জাতিক অপরাধ দমন আদালতের প্রতি আহ্বান জানানোর পর কংগ্রেসের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়ার এ পদক্ষেপ নেয়া হলো।
আইনপ্রণেতা ম্যানুয়েলা বলিভার এএফপিকে বলেন, ‘কংগ্রেস ভবনের বিভিন্ন স্থানে বিস্ফোরক পেতে রাখা হয়েছে এমন অজুহাতে সেবিনের সদস্যরা কেন্দ্রীয় এ প্রাসাদের ব্যাপারে এ পদক্ষেপ নেয়। গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা আমাদেরকে ঘিরে রাখে।’
গুয়াইদো বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা সেখানে ‘ব্যাপক শক্তি’ প্রয়োগ করে। তিনি আরো বলেন, সামরিক শক্তি প্রয়োগ করে কংগ্রেসকে দখল করা হয়েছে। গত ৩০ এপ্রিল মাদুরোর বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান ঘটাতে গুয়াইদো সেনাবাহিনীকে উদ্দীপ্ত করলে সশস্ত্র বাহিনীর মাত্র ৩০ সদস্য তার আহ্বানে সাড়া দেন। এতে দ্রুত শক্তি প্রয়োগের মহড়া শুরু হলে বিক্ষোভকারী ও মাদুরোর অনুগত নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে এবং দু’দিনের মধ্যেই গুয়াইদোর পক্ষের সেনা অভ্যুত্থান ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। এরপর থেকেই মাদুরো সরকার গুয়াইদোর মিত্র ও সমর্থকদের ব্যাপক চাপের মুখে রেখেছে।