ফণী’র সার্বিক বিষয় সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র সার্বিক বিষয় সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় সর্বাত্মক প্রস্তিুত রয়েছে সরকার ও আওয়ামী লীগের। ইতোমধ্যেই সরকারের পক্ষ থেকে অনেক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে প্রশাসনকে সহযোগিতা করার। গতকাল শুক্রবার আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডি কার্যালয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটির সদস্যরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তারা সার্বিক সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত রয়েছেন বলেও জানান তিনি। হানিফ বলেন, ইতোমধ্যে উপকূলবর্তী জেলাগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা বৈঠক করেছেন। নৌ ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সব কর্মকর্তার ছুটি বাতিল করা হয়েছে। নৌপথগুলোতে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। সাইক্লোন সেন্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে। মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ত্রাণ হিসেবে শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও ওষুধ মজুত রাখা হয়েছে। এমনকি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের কাছে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে, যাতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা প্রয়োজনে স্কুলগুলোতে আশ্রয় নিতে পারেন। এ ছাড়া উপকূলবর্তী জেলাগুলোতে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক বলেন, সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবিলায় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সমন্বয়ে একটি মনিটরিং কমিটি করা হয়েছে। তথ্য আদান-প্রদানের জন্য একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। কেন্দ্রেও কিছু ত্রাণ ও মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত রয়েছে।

এ ছাড়া বরিশাল, খুলনা ও চট্টগ্রামের জন্য তিনটি বিভাগীয় কমিটিও করা হয়েছে। এসব বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদকরা এই কমিটির সমন্বয় করবেন। ‘দুর্যোগ মোকাবিলায় বৈঠক না করেই প্রধানমন্ত্রী বিদেশ গেছেন’ বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে হানিফ বলেন, দায়িত্বজ্ঞানহীনতা থেকে তিনি এটা বলেছেন। এটি উন্মাদের প্রলাপ। এমন মন্তব্য করে তিনি নোংরা রাজনীতির পরিচয় দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী সব নির্দেশনা দিয়েই লন্ডন গেছেন। সেখান থেকে সার্বক্ষণিক সব মনিটরিং করছেন। এ সময় হানিফ তথ্য আদান-প্রদানের জন্য দুটি নম্বর দেন। যেখানে ফোন করে যে কেউ তথ্য জানাতে ও জানতে পারেন। নম্বর দুটি হলোÑ৯৬৭৭৮৮১ ও ৯৬৭৭৮৮২। এ ছাড়া একটি ফ্যাক্স নম্বর দেওয়া হয়। নম্বরটি হলোÑ৯৬৬৬৫৫০। ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো রকম গড়িমসি না করার আহ্বান জানান হানিফ। একইসঙ্গে এ নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শও দেন তিনি। হানিফ বলেন, দুর্যোগ মোকাবিলায় সবধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ নিয়ে আতঙ্কিত হবেন না। তবে সর্বোচ্চ সতর্ক বার্তা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে যাবেন। আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার বিষয়ে কোনো রকম গড়িমসি করবেন না। গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার বিভিন্ন দুর্যোগ সফলতার সঙ্গে মোকাবিলার সক্ষমতা দেখিয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনের আগে হানিফের সভাপতিত্বে দলের সম্পাদকম-লীর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেনÑদলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, আহমদ হোসেন, ত্রাণ ও দুর্যোগবিষয়ক সম্পাদক সুজিত নন্দি রায়, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, মহিবুল হাসান নওফেল, কৃষি সম্পাদক ফরিদুন নাহার লাইলী, নির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন, আমিরুল আলম মিলন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। পরে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির বৈঠকের শুরুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাদাভাবে কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। বিএনপির সমালোচনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তারা প্রতিটি ক্ষেত্রে নোংরা রাজনীতি করছে। সবকিছুতে নোংরা রাজনীতি করবেন না। বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, শুধু বিবৃতিতে সীমাবদ্ধ না থেকে, লোক দেখানো কার্যক্রম না করে, জনগণের পাশে দাঁড়ান। জনগণের জন্য কাজ করুন। সরকারের প্রস্তুতি নিয়ে সমালোচনা করায় বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, নিজেদের চেহারা আয়নায় দেখুন। ১৯৯১ সালের কথা একবার স্মরণ করুন।