বিনামূল্যের সার বীজ বিতরণকালে জেলা প্রশাসক

3

জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক বলেছেন, ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেখেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ, মানুষের ঘরে খাবার নেই, ঋণের ভারে জর্জরিত কৃষক। এমন অবস্থায় তিনি ২৫ বিঘা পর্যন্ত কৃষকের জমির খাজনা ও কৃষি ঋণ মওকুফ করে দেন। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধু দেশের মানুষকে এত ভালোবাসতেন যে, ১৯৭৪ সালে দেশে দুর্ভিক্ষের সময় বঙ্গবন্ধু নিজে রুটি খেতেন। তিনি বলতেন ‘দেখ, আমার দেশের মানুষের ঘরে খাবার নেই, আমি কি করে ভাত খাই!’ আজ তার দেখানো পথে হাঁটছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী সকল মানুষের উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি তার পিতার মতোই কৃষকবান্ধব। তাই প্রতিবছর কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে সার ও বীজ বিতরণ করছেন। তারই অংশ হিসেবে আজ আপনাদের এসব সার ও বীজ দেয়া হচ্ছে।
মঙ্গলবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলার তিন হাজার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের চলতি মৌসুমে আউশ উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় উফশী জাতের আউশ ধানের বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর হোসেনের সভাপতিত্বে সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সার ও বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোখলেশুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান সোহরাব আলী, উপজেলা কৃষি অফিসার ড. জাহাঙ্গীর ফিরোজ।
জেলার সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ৩ হাজার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে ৫ কেজি করে বীজ, ১৫ কেজি করে ডিএপি ও ১০ কেজি করে এমওপি সার বিতরণ করা হয়।