জনবল সংকটে গোমস্তাপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস

9

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিস দীর্ঘদিন যাবৎ জনবল সংকটে ভুগছে। এ অফিসের কার্যক্রম কোনোরকমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে। জনবল সংকট নিরসন হলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা আসবে। এ সংকটের কারণে বিভিন্ন প্রকার দাপ্তরিক কাজ থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষিকারা। শিক্ষকরা শিক্ষা অফিসে প্রাতিষ্ঠানিক কোনো কাজে আসলে জনবল সংকটের কারণে তাদের কালক্ষেপণ হয়।
জনবল সংকট প্রসঙ্গে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল বাশার শামসুজ্জামান জানান, উপজেলায় সহকারী শিক্ষা অফিসারের চারজনের স্থলে ২জন কর্মরত আছে। এছাড়াও অফিস সহকারী মঞ্জরিকৃত পদে পাঁচজনের স্থলে মাত্র একজন কর্মরত আছে। একমাত্র অফিস সহকারী পারিবারিক কারণে ছুটি নিলে স্থবির হয়ে পড়ে অফিসের সমস্ত কার্যক্রম। তাই এ সংকট থেকে নিরসনের জন্য জনবল বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। জনবল বৃদ্ধি পেলে কাজের গতি বাড়বে। তিনি আরো বলেন, উপজেলায় ২০১৭ সালে পিএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ২২০ জন। ২০১৮ সালে ৫৪২ জন ও ২০১৯ সালে লক্ষ্য রয়েছে ১০০০ জন। জনবল সংকটের এ বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হলেও এখন পর্যন্ত জনবলের শূন্যস্থান পূরণ করা যায় নি।
উপজেলায় ১১৯ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭৪২ জন শিক্ষক এর ৩৬টি দাপ্তরিক কাজ সম্পন্ন করতে বেশ হিমশিম খেতে হচ্ছে সংশিষ্ট দপ্তরকে।
শিক্ষকদের সাথে বথা বলে জানা গেছে, জনবল সংকট থাকলেও সুনামের সাথেই কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। তাই দ্রুত জনবল সংকট দূর করে দাপ্তরিক কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করার জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন শিক্ষকরা।