বিশ্বের বৃহত্তম ওয়েব পোর্টাল বাংলাদেশের

13

এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। ডিজিটাল হচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই 4G যুগে প্রবেশ করেছে।কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, চিকিৎসাসহ নানা ধরণের নাগরিক সেবা জনগণ পেয়ে থাকেনঅনলাইনেই। বাংলাদেশের গর্ব করার মতো আছে অনেক কিছুই। এই দেশে অনেক পর্যটক-আকর্ষক স্থান আছে। এর মধ্যে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন, ঐতিহাসিক মসজিদ এবং মিনার, পৃথিবীরদীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত, পাহাড়, অরণ্য ইত্যাদি অন্যতম। গর্ব করার তালিকাটা অনেক দীর্ঘ। এইতালিকায় আরেকটি নাম যুক্ত হল-জাতীয় তথ্য বাতায়ন (https://bangladesh.gov.bd)।

বিশ্বের বৃহত্তম সরকারি ওয়েব পোর্টালের মালিক এখন বাংলাদেশ। সরকারের সব ধরণের সেবা কার্যক্রমকে ডিজিটালাইজেশন করতে তৈরি করা হয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড়ওয়েবসাইট। দেশের সব ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা, বিভাগ, অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়ের জন্য২৫ হাজার ওয়েবসাইট নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ নামের এই পোর্টালটি। ২৫হাজার ওয়েবসাইটকে একত্র করে কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নেওয়ার কারণে এর নামদেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল পোর্টাল বা জাতীয় বাতায়ন। যেখানে দেশের সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্যপাওয়া যায়। প্রশাসনের শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তাদের অনিয়ম-দুর্নীতি রোধ করে দ্রুত সেবাপ্রদানও তথ্যপ্রযুক্তি সমৃদ্ধ ডিজিটাল দেশ গঠনের লক্ষ্যে জাতীয় তথ্য-বাতায়নের যাত্রা শুরু হয়।ইউএনডিপি ও ইউএসএইডের কারিগরি সহায়তায় পরিচালিত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়েরঅ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের উদ্যোগে বাংলা ভাষায় বিশ্বের বৃহত্তমসরকারি পোর্টালটি তৈরি করা হয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরতে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, পুরাকীর্তি, ঐতিহাসিকস্থানগুলোর চার লাখের বেশি ছবি সংযোজন করা হয়েছে। দেশের সব সরকারি-বেসরকারিপ্রতিষ্ঠানের তথ্য ও কর্মকর্তাদের তালিকা উন্মুক্ত করা হয়েছে। রয়েছে মন্ত্রিপরিষদ ও পে-কমিশনের তথ্যও। এই পোর্টাল থেকে জনগণ অনলাইন সেবার প্রয়োজনীয় সব ধরণের তথ্য যেকোনো স্থান থেকে সার্চ করে নিতে পারছেন।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ, বিচার ব্যবস্থা, সাংবিধানিক বিভিন্ন সংস্থাসমূহ, মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সমূহ, নাগরিক সেবা সমূহ, ব্যবসা সেবা, সরকারী সার্কুলার/গেজেট, জেলা তথ্য বাতায়ন, বাজেট সংক্রান্ত তথ্যসমূহ, পর্যটন সংক্রান্ত তথ্যসমূহ,আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক তথ্য, বাংলাদেশের কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য সেবা সমূহ, নিয়োগ সংক্রান্ত তথ্যসমূহ বিশেষ করে বিসিএস, বাজারদর বিষয়ক তথ্য, বিভিন্ন পরিষেবামূলক তথ্য, দুর্যোগব্যবস্থাপনা বিষয়ক তথ্য ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে এই পোর্টালের মাধ্যমে। মোটকথা, বাংলাদেশসরকারের জনপ্রিয় সেবাসমূহের সবরকম তথ্য, সরকারি কাঠামোর মৌলিক তথ্য, সরকারিবিভিন্ন সংস্থার ওয়েবসাইট, ওয়েবে প্রকাশিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও লিংক এ ওয়েবসাইট থেকেপাওয়া যাচ্ছে।

এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সার্কুলার, ৪০০ ই-সেবা পাওয়ার ধাপ, সরকারি ফরম, সিটিজেনচার্টার, কর্মকর্তাদের তালিকা, ৭ লাখের বেশি ই-ডিরেক্টরি, মুক্তিযোদ্ধা তালিকা, উন্নয়নকর্মকাণ্ডের তথ্য, জনপ্রতিনিধি, জাতীয় ই-সেবা, বিভিন্ন প্রকল্পের দরকারি তথ্যসহ মোট ২০লাখেরও বেশি কন্টেন্ট এতে রয়েছে। একই প্ল্যাটফর্মে ৫ হাজারের বেশি ডোমেইনে রয়েছেসরকারি অফিসের ওয়েবসাইট। ৬১টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ, ৩৪৫ অধিদপ্তর,৭ বিভাগ, ৬৪জেলা, ৪৮৮ উপজেলা, ৪ হাজার ৫৫০ ইউনিয়নসহ মোট ২৫ হাজার ওয়েবসাইট।

জাতীয় তথ্য বাতায়নের এই যাত্রাকে বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তি খাতে এক বিপ্লব বলে মনেকরছেন বিশেষজ্ঞরা।