শিবগঞ্জে বাণিজ্যিকভাবে শুরু হয়েছে ব্রোকলি চাষ

54

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় এ বছর বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু হয়েছে পুষ্টি সমৃদ্ধ শীতকালীন সবজি ব্রোকলি বা সবুজ ফুলকপি। কপি গোত্রের অন্যান্য সবজির চেয়ে ব্রোকলি অপেক্ষাকৃত বেশি পুষ্টি সমৃদ্ধ ও ক্যান্সার প্রতিরোধক এ সবজি চাষে এগিয়ে এসেছেন কৃষক নজিবুল্লাহ ও আবুল কাশেম। শিবগঞ্জের কালুপুর ও শ্যামপুরে ৭ বিঘা জমিতে কৃষি বিভাগের সহায়তায় এ সবজির চাষ করার উদ্যোগ নেন তারা। ব্রোকলি একটি ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এ সমৃদ্ধ উচ্চ পুষ্টিগুণ সম্পন্ন কীটনাশকমুক্ত সবজি হওয়ায় স্থানীয় কৃষি বিভাগ সবুজ ফুলকপি খ্যাত এ সবজিটি চাষের জন্য কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করছে।
স্থানীয় কৃষি বিভাগ জানায়, ব্রোকলি যে শুধুই স্বাদে, বর্ণে ও গন্ধে অনন্য তা নয়, ব্রোকলির রয়েছে বহুবিধ পুষ্টি উপাদান যা আমাদের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখতে নানা ভাবে সহায়তা করে। শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ পুষ্টিগুণ ও স্বাস্থ্য উপকারিতায় এই ব্রোকলির জুড়ি মেলা ভার। সাধারণত অন্যান্য সবজিতে ব্রোকলির মতো এতো পুষ্টিগুণ পরিলক্ষিত হয় না আর এজন্যই এর কদরও দিন দিন বেড়েই চলেছে। ব্রোকলি দৃষ্টি শক্তি ঠিক রাখতে সহায়তা করে। অন্যান্য পুষ্টি উপাদানের পাশাপাশি ব্রোকলিতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ থাকায় রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে এবং দৃষ্টি শক্তি ঠিক রাখে।এছাড়া এতে ক্যালরির পরিমাণ অনেক কম থাকে বলে অতিরিক্ত ওজন নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা রাখে।
ব্রোকলি মানব দেহের গ্লুকোসিনোলেট নামক অর্গানিক উপাদানের মাত্রা বাড়িয়ে লিভারের দূষিত পদার্থ নিষ্কাশন করে ফলে লিভার থাকে রোগ মুক্ত।সেসাথে প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন কে তে ভরপুর ব্রোকলি হাড়ের গঠন শক্তিশালী করে ও বিভিন্ন ধরনের হাড়ের রোগে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।
শুধু তাই নয় ব্রোকলি প্রাকৃতিক আশ বা ফাইবার সমৃদ্ধ বলে দেহের পরিপাক তন্ত্র ঠিক রাখে, খাদ্য সঠিক ভাবে হজম করতে সাহায্য করে ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। এমনকি এটি নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে সহায়তা করে।
অন্যদিকে হƒদরোগ প্রতিরোধে ব্রোকলি বা সবুজ ফুলকপি অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা পালন করে। এর উপকারী পুষ্টি উপাদান ম্যাগনেশিয়াম আর ক্যালসিয়াম রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং মানব দেহের ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে । উপরন্তু ব্রোকলিতে বিদ্যমান ভিটামিন বি ৬ হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে আনে। এছাড়াও এই সবুজ ফুলকপি ব্রোকলিতে বিদ্যমান আর,ডি,এ নামক এন্টি অক্সিডেন্ট দেহের যেকোন ধরনের ক্ষত দ্রুত সারিয়ে তুলে এবং ফ্রি র‌্যাডিকেলের বিপরীতে কাজ করে। এবং অ্যালার্জি প্রতিরোধে উপকারী উপাদান ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড যা প্রদাহ বিরোধী হিসাবে কাজ করে এবং ক্যাম্ফেরল প্রায় সকল ধরনের অ্যালার্জেটিক উপাদান হ্রাস করে। সর্বপরি এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে অভাবনীয় প্রভাব বিস্তার করে। তাই আমাদের মস্তিষ্ক ও এর কার্যক্রম সুচারুরূপে সম্পাদন করতে এর ভূমিকা অপরসীম এবং ব্রোাকলির এন্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি মানব শরীরের তারুণ্য ধরে রাখতে ও দ্রুত বৃদ্ধ হওয়া থেকে রক্ষা করে। বিশেষ করে এটি ভয়ংকর মরণ ব্যাধি ক্যান্সার প্রতিরোধে এবং ক্যান্সারের কোষ বৃদ্ধিতে বাধা সৃষ্টি করে। এর বিটা ক্যারোটিন ও সেলিনিয়াম বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার যেমন, ফুসফুস, যকৃত, প্রোস্টেট, কোলন ও প্যানক্রিয়াটিক ক্যান্সারের আক্রমন থেকে রক্ষা করে ও এর বিপরীতে লড়াই করে।
নজবুল্লাহ রহমান পেশায় একজন শিক্ষিত কৃষক। তিনি এর আগে শিবগঞ্জে প্রথমবার স্ট্রবেরী, বিভিন্ন জাতের কুল এবং পেয়ারা চাষ করে সফল হবার পর এবার কৃষি বিভাগ তার মাধ্যমে প্রথম বাণিজ্যিকভাবে ব্রোকলি চাষ করানোর উদ্যোগ নেয়। সফলও হয়েছেন তিনি। কৃষি বিভাগের সহায়তায় তার ৫ বিঘা জমিতে এবং একই উপজেলার শ্যামপুরে অপর এক কৃষকের জমিতে ২ বিঘা ব্রোকলি এবারই প্রথম বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হচ্ছে। এর আগে গতবছর স্থানীয় কৃষি বিভাগ নজবুল্লাহর ২ বিঘা জমিতে পরীক্ষামুলকভাবে এটি চাষ করে সফল হবার পর তা এবার বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়নের কালুপুর গ্রামের কৃষক নজবুল্লাহ জানান, এ সবজিটি চারা তৈরি থেকে মাত্র ৯০ দিনে উত্তোলন যোগ্য এবং রোগ বালায় ও পোকামাকড়ের আক্রমন কম হওয়ায় কীটনাশকমুক্ত। এটির পরিচর্যা ও উৎপাদন খরচ বিঘা প্রতি ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকা। যা বিক্রি করে আয় হয়ে থাকে ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা। কম সময়ে লাভজনক এ সবজিতে বিঘা প্রতি ৩০ হাজার টাকা লাভ হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
অন্যদিকে পাইকারী ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম জানান, গত বছর এ সবজিটি নতুন হওয়ায় তিনি বিক্রি করতে হিমসিম খেলেও এবছর স্বাদযুক্ত এ সবজির চাহিদা বাড়ায় দিনে তিনি ১শ পিস করে বিক্রি করতে পারছেন। পাশাপাশি এটি লাভজনক হওয়ায় কৃষকরাও এটি চাষে আগ্রহী হয়ে পড়ছেন।
এদিকে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকতা মো. সুলতান আলী জানান, উচ্চ মূল্যের এ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ সবজি টি ভিটামিন এ,বি, সি, কে, ক্যালসিয়াম ম্যাগনেসিয়াম ও ক্যান্সার প্রতিরোধক এন্টি অক্সিডেন্ট থাকায় ভোক্তা পর্যায়ে এর চাহিদা বাড়ায় এবছর বিক্রি বেড়েছে। অন্যদিকে শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ এস এম আমিনুজ্জামান জানান, তার প্রচেষ্টায় প্রথম বছর উচ্চ মূল্যের ও পুষ্টিগুণ সম্পন্ন সবুজ ফুলকপি খ্যাত ব্রোকলি চাষে স্থানীয় কৃষকরা আগ্রহী না থাকায় মাত্র ২ বিঘা জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে চাষের পর এ বছর ব্যাপক প্রচারণার কারণে এবং ভোক্তাদের চাহিদা থাকায় আবাদও বেড়েছে, বিক্রি বেড়েছে। সেসাথে কৃষি বিভাগ কৃষকদের বাজারজাত করণসহ সবরকম সহায়তা দেয়ায় আগামী বছর এর চাষ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
প্রসঙ্গত, জেলার ৫ উপজেলার একমাত্র শিবগঞ্জ উপজেলায় গত বছর পরীক্ষামূলক চাষের পর এ বছর ৭ বিঘা জমিতে ব্রোকলি চাষ করা হয়েছে।