আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দর পেতে যাচ্ছে বাগেরহাটবাসী

আন্তর্জাতিক মানের বিমান বন্দর হতে যাচ্ছে বাগেরহাটবাসী। বাগেরহাটে রামপাল উপজেলায় হবে এই বিমানবন্দর। বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু করা হয়েছে। অধিগ্রহণের জন্য ৫২৯ একর জমি সিভিল অ্যাভিয়েশন অথোরিটি অব বাংলাদেশের (সিএএবি) কাছে হস্তান্তর করেছে জেলা প্রশাসন। বিমান বন্দরটি নির্মাণের ফলে খুলনা ও বাগেরহাটবাসীর অনেক দিনের প্রত্যাশা পূরণ হবে। খান জাহান আলী বিমান বন্দর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প। পিপিপি (পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ) এর আওতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করার জন্য চেষ্টা করছে সরকার। তা সম্ভব না হলে পদ্মা সেতুর মতো নিজস্ব অর্থায়নে দ্রুত নির্মাণ করা হবে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরটি। বিশাল এলাকাজুড়ে বিমানবন্দর নির্মাণ কাজ শুরুর ফলে অনেক সাধারণ মানুষের জমি তার ভিতর অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। অধিগ্রহণে অন্তর্ভুক্ত হওয়া ২০ জন জমির মালিককে ক্ষতিপূরণের জন্য চেক প্রদান করা হয়েছে।খানজাহান আলী বিমান বন্দর নির্মাণ প্রকল্পটি শুরু হয় অনেক আগেই। যদিও তখন শর্ট টেক অফ ল্যান্ডিং বন্দর হিসেবে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এরপর নানা কারণে বন্ধ হয়ে যায় এর নির্মাণ কাজ। বর্তমানে আরও বড় পরিসরে নির্মাণ করা হচ্ছে এই বিমানবন্দর। মোট ৬৩০ একর জমির উপর নির্মাণ করা হবে এই বিমানবন্দরটি। আন্তর্জাতিক মানের সকল সুবিধা থাকবে এই বিমান বন্দরটিতে। এটি তৈরী করার জন্য পরামর্শক দল নিয়োগ করা হয়েছে। তারা বর্তমানে মূল নকশা তৈরীর কাজ করছেন। বিমানবন্দরটি নির্মাণের ফলে দেশে বিমানবন্দরের সংখ্যা বাড়বে। নির্মাণ কাজ শেষ হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অর্থনৈতিক অবস্থার আরও উন্নতি হবে বলে আশা করছে সংশ্লিষ্টরা।

SHARE