রাজশাহী বিএনপির কার্যালয়ে তালা দিলো পদবঞ্চিত ছাত্রদল নেতারা


কাউকে না জানিয়ে রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের ছয়টি থানা ও তিনটি কলেজের কমিটি ঘোষণার প্রতিবাদে রাজশাহী মহানগর বিএনপির কার্যালয়ে তালা দিয়েছে সংগঠনের পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। ২৬ আগস্ট (রোববার) বেলা ১২টার দিকে নগরের ভুবন মোহন পার্কের পাশে মালোপাড়া এলাকায় অবস্থিত বিএনপির কার্যালয়ে তালা দেওয়া হয়।

রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সহসভাপতি মো. আরিফুজ্জামান বলেন, রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে কাউকে না জানিয়ে ২৫ আগস্ট রাতে নগরের ছয়টি থানা ও তিনটি কলেজ শাখা ছাত্রদলের এই কমিটিগুলো ঘোষণা করা হয়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে রিফাত হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সাফায়েত হোসেনসহ ২৯ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

সিটি কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে সোহান, সম্পাদক লিমনসহ ১২ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। নিউ গভঃ ডিগ্রি কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি অন্তর, সম্পাদক রিজুসহ ১২ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। মতিহার থানা ছাত্রদলের সভাপতি পাখি, সম্পাদক পিয়ালসহ ২৮ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

এ ছাড়া রাজপাড়া থানা ছাত্রদলের সভাপতি আসাদ, সম্পাদক রাতুলসহ ২১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। বোয়ালিয়া থানা ছাত্রদলের সভাপতি সজীব, সম্পাদক রবিনসহ ৪৪ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

শাহ মখদুম থানা ছাত্রদলের সভাপতি ডলার, সম্পাদক খাইরুলসহ ২১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। কাশিয়াডাঙ্গা থানা ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে রনি, সম্পাদক মুরাদসহ ২১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। চন্দ্রিমা থানা ছাত্রদলের সভাপতি বাবু, সম্পাদক রাশেদসহ ২১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

মহানগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মো. আরিফুজ্জামান আরও বলেন, নগরে বিএনপির থানা কার্যালগুলোতেও তালা দেওয়া হবে। পর্যায়ক্রমে ওয়ার্ড কার্যালয়গুলোতে তালা দেওয়া হবে। এই কমিটিতে যাদের পদ দেওয়া হয়েছে তারা যোগ্য না। এছাড়া অনেকের বিরুদ্ধে মাদকসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এসময় নগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নাজমুল সাদাতসহ ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

নেতারা বলছেন, রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের টাকা খেয়ে মাদকসেবী ও অযোগ্যদের পদ দিয়েছেন। এ ব্যাপারে রাজশাহী মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামানের ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ফোন ধরেননি।