শতাধিক সেবায় কাজে লাগে স্মার্ট কার্ড জেলা প্রশাসক


জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল হাসান বলেছেন, পাসপোর্ট, জমি রেজিস্ট্রেশনসহ শতাধিক সেবায় স্মার্ট কার্ড কাজে লাগে। কাজেই স্মাট কার্ডটি যতœ করে রাখতে হবে। যাদের কাছে স্মার্ট কার্ড থাকবে না তাদের জীবন অচল হয়ে যাবে। গত কাল বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ডের ১ লাখ ১৭ হাজার ৭০৮ জনের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ-কথা বলেন। এ সময় তিনি জানান ১৯৯৮-১৯৯৯ সালে সরকার প্রথম ছবিসহ ভোটার আইডি কার্ড দেওয়ার কার্যক্রম গ্রহণ করে। সে সময় নানা কারণে কার্যক্রমটি বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে নির্বাচন কমিশন সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় ছবিসহ ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করে ভোটারদের মাঝে বিতরণ করে। পরে মানুষ এর কার্যকারিতা বুঝতে পারে। তখন ১৭টি সেবার কথা বলা হয়েছি। তবে পরবর্তীতে শতাধিক সেবার কথা চলে আসে। তিনি শৃঙ্খলতার সাথে স্মার্ট গ্রহণের জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।


অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার টি এম মোজাহিদুল ইসলাম বলেন-স্মার্ট কার্ডটি সবার জন্যই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটিকে অবশ্য যতেœ্ রাখতে হবে। কারণ, ২০১৩ সালের ৫৮৫জনকে আসামী করে একটি মামলা হয়। সেই মামলায় দেখা যায় অনেক আসামীর নাম ঠিকানার মিল নেই। মামলাটি পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশনায় পুন;তদন্ত হয়। ফলে তার পর থেকে মামলার ক্ষেত্রেও স্মার্ট কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্রের প্রয়োজন হয়ে পড়ে। এ ছাড়াও ব্যাংক একাউন্ট থেকে শুরু করে এখন যাবতীয় কাজে এই কার্ড প্রয়োজন হচ্ছে এবং ভবিষ্যতে এই কার্ড ছাড়া কোনো সেবায় পাওয়া যাবে না। তিনি লাইনে দাঁড়িয়ে শৃঙ্খলতা বজায় রেখে কার্ড গ্রহণ করবেন। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলতার চেষ্টা যেন কেউ না করে সে জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান। এ ব্যাপারে জনসাধারণকে সচেতন করতে স্থানীয় পত্রিকাগুলোর প্রতি তিনি অনুরোধ জানানা।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পৌর মেয়র মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম সকাল প্রকার সহযোহিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
স্মার্ট কার্ড বিতরণের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আরিফুল হক। অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কাইছার মোহাম্মদ।
মেয়র মোহাম্মদ নজরুল ইসলামকে তাঁর স্মার্ট কার্ড প্রদানের মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড বিতরণের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল হাসান। অনুষ্ঠানে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর দাউদ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু হায়াত মো. রহমতুল্লাহ, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর হোসেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহবুব আলম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল হুদা অলক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এমরান ফারুক মাসুম ও সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম রঞ্জু, দৈনিক গৌড় বাংলার সম্পাদক হাসিব হোসেনসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

SHARE