ম্যাট্রিক্স গার্মেন্টসের আগুনের নেপথ্যে ছিলেন হাসান উদ্দিন সরকার

আগামী ২৬ জুন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি প্রার্থী সম্পর্কে বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। সেই ধারাবাহিকতায় এবার ম্যাট্রিক্স সোয়েটার কারখানায় অগ্নিসংযোগের অভিযোগ উঠে এসেছে।

সময়টা ২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬ সাল। অন্যদিনগুলোর মতই কাজ করে যাচ্ছিলো হাজার হাজার শ্রমিক।

গার্মেন্টসে যখন পুরোদমে কাজ চলছে সেই সময় মুহূর্তে ভিতরে ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় গোটা গার্মেন্টস ভবন। আগুনের লেলিহান শিখা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ভবনের এক একটি ফ্লোরে। ভয়ানক ঐ অগ্নিকান্ডে পুড়ে অঙ্গার হয়েছে বেশ কয়েকজন অন্তঃসত্ত্বা নারী, নিষ্পাপ শিশু। যাদের সবার বয়স ১-৫ বছর। আরো আছে যুবক- যুবতী, বৃদ্ধ সহ কয়েকজন নিরাপত্তাকর্মী যারা প্রাণ দিয়েছেন কাজ করতে এসে। সবাই এখানে কাজ করতে এসেছিলো পরিবারের মুখে হাসি ফুটাতে। দিন শেষে প্রিয়জনের মুখ দেখার আশায় ছিল পরিবারের লোকজন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে প্রিয়জনের মৃতদেহও তা পায়নি। ছিল শুধুমাত্র ভস্ম।

এই বিশাল অগ্নিকাণ্ডের পিছনে কলকাঠি নেড়েছেন বিএনপির হাসান উদ্দিন সরকার। অনুসন্ধানে জানা গেছে গার্মেন্টস মালিকের কাছে বিপুল অংকের চাঁদা চেয়েছিলেন তিনি। চাঁদা না দেয়ার কারণে অবশেষে তিনি তার ক্ষোভ ঝারলেন একদল নিষ্পাপ মানুষের ওপর, দেশের প্রবৃদ্ধির চালিকাশক্তির ওপর। হাসান উদ্দিনের পরিকল্পনা এবং সরাসরি ইন্ধনে উক্ত ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটানো হয়। বিএনপি মানেই ধ্বংসাত্মক রাজনীতি, ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড। তাই এবারের নির্বাচনে গাজীপুরবাসী ব্যালট বাক্সে বিএনপি তথা হাসান উদ্দিনের সকল কুকর্মের জবাব দিবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।