টানা এক দশকজুড়ে সংসদে বাজেট ঘোষণা করে সরকারের নতুন ইতিহাস

3

বাংলাদেশের সংসদীয় রাজনীতির ইতিহাসে একটি নতুন অধ্যায় যুক্ত হলো বৃহস্পতিবার। মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার টানা এক দশক ধরে সংসদে জাতীয় বাজেট ঘোষণা করার মাধ্যমে এক নতুন ইতিহাস রচনা করলো। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জনকারী এই দেশের আর কোনো রাজনৈতিক দল টানা এক দশক জুড়ে সংসদে নেতৃত্ব দেয়নি। বিএনপি সরকারের বিভিন্ন মেয়াদে তাঁদের অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান মোট ১২টি বাজেট সংসদে উপস্থাপন করলেও একটানা ১০টি বাজেট ঘোষণার কৃতিত্বের ভাগিদার একমাত্র বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের। শুধু অর্থমন্ত্রীরই কৃতিত্ব নয়, টানা ১০টি বছর সরকারের নেতৃত্ব দিয়ে গণতান্ত্রিক ইতিহাসে নিজের নামটি স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ করার কৃতিত্ব দেখালো মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এক্ষেত্রে নতুন ইতিহাসের একটি উজ্জ¦ল অধ্যায়। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর একমাত্র আওয়ামী লীগ এবং দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারই একটানা ১০টি বছর ক্ষমতায় থেকে ১০টি বাজেট উপস্থাপন করে এক নতুন ইতিহাস রচনা করলো। তবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বাজেট প্রদানের কৃতিত্ব রয়েছে বিএনপি আমলের অর্থমন্ত্রী প্রয়াত সাইফুর রহমানের। আবুল মাল আবদুল মুহিতের মতো সাইফুর রহমানও সংসদে অর্থমন্ত্রী হিসেবে সংসদে মোট ১২টি বাজেট উপস্থাপন করেছেন। এবিষয়ে সরকারের মন্ত্রী-নেতারা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে জানিয়েছেন, জাতির জনকের কন্যা বর্তমান সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সংসদীয় গণতন্ত্রে নতুন নজির সৃষ্টি করেছে। তিনি (শেখ হাসিনা) যেভাবে দেশ, জাতি এবং দলকে সুসংগঠিত করে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন, সে কারণেই আজ আমরা এই অবস্থানে আসতে সক্ষম হয়েছি। তবে টানা দশ অর্থবছর বাজেট প্রণয়নে নেতৃত্ব দেওয়া আওয়ামী লীগের একক কৃতিত্ব না। এটা বাংলার জনগণের জনগণের বিজয়। তারাই আমাদের এই সুযোগ দিয়েছে।বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের দেশের ইতিহাসের সর্ববৃহৎ ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এর মাধ্যমেও তিনি দেশের একমাত্র অর্থমন্ত্রী হিসাবে টানা এক দশক বাজেট পেশের রেকর্ডটি নিজের করে নিলেন। তবে মোটের হিসাবে তিনি এবার ১২তম বাজেট পেশ করে সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের সমকক্ষতা অর্জন করলেন। বিশ্বের সবচেয়ে বয়সী অর্থমন্ত্রী তবে বাস্তবে এখনও নবীন আবুল মাল আবদুল মুহিতের জীবনে এটিই শেষ বাজেট উপস্থাপন কি না, তা এখনও নিশ্চিত নয়। তিনি মুখে এটি তার শেষ বাজেট উপস্থাপনের কথা বললেও এটি নির্ভর করছে সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের ওপর। সংসদ সচিবালয় সূত্র জানায়, সামনেই আগামী জাতীয় নির্বাচন। তাই ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ’ শিরোনামে ১১০ পৃষ্ঠার বাজেটটি ভোটারদের তুষ্টির কথা মাথায় রেখেই রচনা করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। অর্থমন্ত্রীর বাজেট প্রস্তাবের পর পুরো অধিবেশনজুড়ে বাজেটি নিয়ে চুলচেঁড়া বিশ্লেষণ করবেন সংসদ সদস্যরা। আলোচনা শেষে আগামী ২৮ জুন জাতীয় সংসদে বাজেটটি পাস হবে।এদিকে বাজেট অধিবেশনকে ঘিরে নতুনভাবে সাজানো হয়েছে পুরো অধিবেশনকে। সংসদ গ্যালারির সাউন্ড সিস্টেম আধুনিক করা হয়েছে। আর অধিবেশন কক্ষের কার্পেট পরিবর্তন করে লাগানো হয়েছে নতুন কার্পেট। চেয়ারগুলো মেরামত করে নতুন করে সাজানো হয়েছে। সংসদের ভিতরে বাইরে ধুয়ে মুছে পরিস্কার করা হয়েছে। সংসদে প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। সংসদ সদস্যদের সহযোগিতার জন্য বসানো হয়েছে হেল্প ডেস্ক। তাদের ডেস্কে দেওয়া হয়েছে মডেমসহ ল্যাপটপ। এর মাধ্যমে তারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে যাবতীয় তথ্য পাবেন।