সামাজিক মর্যাদা বিবেচনায় পুরাতন কারাগারে খালেদা জিয়া : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার সামাজিক মর্যাদা ও অবস্থান সবকিছু বিবেচনা করেই তাকে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জমান খাঁন কামাল। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বড় একটি রাজনৈতিক দলের চেয়ারপারসন। ওঁর বয়স, সামাজিক মর্যাদা, সামাজিক অবস্থান সবকিছু বিবেচনা করেই সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অত্যন্ত স্বাভাবিক। কোথাও কোনও বিশৃঙ্খলা বা গোলযোগ হয়নি। কোথাও বিশৃঙ্খলার চেষ্টাও করা হয়নি। কোথাও কোনও প্রতিবাদ হয়নি। সব জেলা আমি স্বাভাবিক দেখছি।’ কারাগারে খালেদা জিয়া কী কী সুবিধা পাবেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী। উনি জেলকোড অনুযায়ী সব সুবিধাই পাবেন।’
সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিএনপি একটি রাজনৈতিক দল। এ দলকে তো নিষিদ্ধ করা হয়নি। যেকোনও কর্মসূচি তারা তো নিতেই পারে। তবে রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি যদি কোনও কর্মসূচি দেয়, বিশৃঙ্খলা কিংবা নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করে, তাহলে পুলিশ তা প্রতিহত করবে। তবে কেউ যেন ভাঙচুর কিংবা নৈরাজ্য সৃষ্টির সুযোগ না পায়, সেজন্য সতর্ক থাকবে পুলিশ।’
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বেগম জিয়ার গাড়িবহরের সামনে অনেক মানুষ ছিল। তাই আমাদের দলের নেতাকর্মীরাও ছিল। ওঁর গাড়ির সামনে এত মানুষ ছিল যে, আদালতে পৌঁছাতে ওঁর দু’ঘণ্টা লেগেছে। পুলিশ চেয়েছিল ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে উনাকে নিয়ে আসতে। কিন্তু তিনি নিজেই ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে আসতে চাননি।’
খালেদা জিয়ার বর্তমান বাসভবনকে সাবজেল হিসেবে ঘোষণা করা হবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এ ধরনের কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে অন্য কোথাও নিয়ে যাওয়া হবে কিনা সে ব্যাপারেও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে পরবর্তীতে যেকোনও সময় যেকোনও সিদ্ধান্ত নিয়ে উনাকে যেকোনও জায়গায় নেওয়া হতে পারে।’