৭ মার্চের ভাষণের বিশ্ব স্বীকৃতিতে আ.লীগের ৭ দিনের কর্মসূচি

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অফ দা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে’ যুক্ত হওয়ায় সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। গত বুধবার রাতে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকম-লীর এক জরুরি বৈঠক শেষে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তাদের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ৩ নভেম্বর (আজ শুক্রবার) বঙ্গবন্ধু ভবনে জমায়েত এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ৪ নভেম্বও (আগামীকাল শনিবার) দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ সম্প্রচার ও সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে র‌্যালি, ৫ নভেম্বর সারা দেশের মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডায় বিশেষ দোয়া প্রার্থনা, ৬ নভেম্বর ঢাকা ব্যতীত সারা দেশে আনন্দ শোভাযাত্রা, ৭ নভেম্বর দেশব্যাপী আলোচনা সভা ও সেমিনার, ৮ নভেম্বর সারাদেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ৯ নভেম্বর দুপুরে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের স্মৃতি-বিজড়িত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (রেসকোর্স ময়দান) নাগরিক সমাবেশ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের এই স্বীকৃতি নিয়ে বিএনপি প্রতিক্রিয়া না জানানোয় দলটির সমালোচনা করেন ওবায়দুল কাদের। ইতিহাসের মহানায়কের পাশাপাশি ইতিহাসের খলনায়ককে উপস্থাপনকারীদের জিজ্ঞাসা করুন, কেন তারা এত কুণ্ঠিত, কেন তাদের এত কৃপণতা, বলেন তিনি। খালেদা জিয়ার কক্সবাজার যাওয়া-আসার পথে দুই দফা হামলায় জড়িতদের গ্রেফতার না হওয়া নিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এটা আজকের প্রশ্ন, সারা দেশের প্রশ্ন যে, ইউটিউবে যার বক্তব্য এসেছে তাকে কবে গ্রেফতার করা হবে? ইউটিউবে যার বক্তব্য এসেছে সে তো বিএনপির ডাকসাইটে নেতা, তিনি জড়িত হলেও তাকে কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে না? এটা আজকে জাতির প্রশ্ন। এটা তথ্য-প্রমাণসহ বেরিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এনামুল হক শামীম, মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ উপস্থিত ছিলেন।