বর্জ্য কুড়িয়ে লাখপতি

২৩ বছর আগে জীবনটা এত সহজ ছিল না জয়প্রকাশ চৌধুরীর। যিনি নিজেকে শান্তু হিসেবে পরিচয় দিতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। বিহারের মুঙ্গের থেকে দিল্লিতে এসেছিলেন তখন। আবর্জনা কুড়িয়ে দিনে তার আয় হতো ১৫০ রুপি। ২৩ বছরে পরে জয়প্রকাশের আয় শুনলে ভ্রু কুঁচকে যেতে বাধ্য। কারণ মাসে ১১ লাখ রুপি আয় তো চাট্টিখানি কথা নয়। ৪০ বছরের জয়প্রকাশ চৌধুরীর কর্মজীবন শুরু হয়েছিল ফলের দোকানে সহকারী হিসেবে। তখন ২০ রুপি করে দৈনিক পেতেন। এখন তার অধীনে থাকা দুইটি বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কেন্দ্রে এখন ১৬০ জন কাজ করেন। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে জয়প্রকাশ চৌধুরী বক্তৃতা দিয়েছেন কোপেনহেগেন, লুক্সেমবার্গ ও ব্রাজিলে। সেখানে তিনি নিজের জীবনেরও গল্প শুনিয়েছেন। জয়প্রকাশ চৌধুরী বলেন, আমার শিক্ষকেরা মনে করেন পরিবেশের জন্য আমি যা করেছি তা শিক্ষিত লোকেরাও করতে পারেনি। অথচ তারাই আমার কাজকে তাচ্ছিল্যের সঙ্গে দেখেছে।