আইন সংশোধন করে ভ্যাট হার স্বস্তির জায়গায় নিয়ে আসা হবে : অর্থমন্ত্রী

নতুন ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর বা মূসক) আইন সংশোধন করে ভ্যাট হার স্বস্তির জায়গায় নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। গতকাল বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সামনে ‘ভ্যাট অনলাইন মোবাইল হেল্প ডেস্ক’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী এ কথা জানান। সাংবাদিকরা অর্থমন্ত্রীকে জানান, ব্যবসায়ীরা ভ্যাট হার ৩ থেকে ৫ শতাংশ রাখার জন্য বলছেন। এ ব্যাপারে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘রাবিশ। মাই ওনলি কমেন্ট ওন দিস প্রপোজাল ইজ রাবিশ।’ বিদেশিদের খুশি করার জন্য সম্পূরক শুল্ক তুলে দেওয়া হচ্ছে বলে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছেনÑসাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, যারা এমন কমেন্টস করেছে, তারা রাবিশ। ভ্যাট হার এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ভ্যাট হার কত হবে, এখন বলতে পারব না। সেটা বাজেটে বলব। জানা যায়, আগামি ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়িত হবে। ব্যবসায়ীদের ভ্যাট নিবন্ধনে উৎসাহ প্রদানের জন্য এনবিআর চারটি বাসে ভ্রাম্যমাণ বা ‘ভ্যাট অনলাইন মোবাইল হেল্প ডেস্ক’ স্থাপন করেছে। এসব বাস প্রতিদিন ঢাকার বিভিন্ন মার্কেটের সামনে যাবে। বাসে ঢাকার ভ্যাট কমিশনারেটের কর্মকর্তারা অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধনের জন্য ল্যাপটপসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে প্রস্তুত থাকবেন। এ ছাড়া ঢাকায় আরো তিনটি ও চট্টগ্রামে দুটি এসি বাস নামানো হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, এনবিআর সদস্য (শুল্ক ও ভ্যাট প্রশাসন) ও ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল হাসান প্রমুখ।
এদিকে, গতকাল বুধবার হোটেল সোনারগাঁওয়ে জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস বিষয়ে তিন দিনব্যাপী এশিয়া-প্যাসিফিক ব্রডকাস্টিং ইউনিয়নের (এবিইউ) তৃতীয় গণমাধ্যম সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশ বেশি আক্রান্ত হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব গোমলাম মতুর্জার সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হাক ইনু। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, জলবায়ুর পরিবর্তনের বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। তবে আমরাই বিশ্বের যেকোনো দেশের তুলনায় এ ক্ষতিতা কাটিয়ে উঠছি। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কাটিয়ে উঠার জন্য বাংলাদেশ যেসব প্রোগ্রাম হতে নিয়েছে সেগুলো বিশ্বের যেকোনো তুলনা সবচেয়ে চমকপ্রদ। অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বব্যাপী ক্লাইমেট চেঞ্জ ফান্ড গঠনের আগেই বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। স্বাধীনতার পরপরই ঘূর্ণিঝড়ে বাংলাদেশে ব্যাপক ক্ষতি হয়। তখন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান মুজিব কিল্লা নির্মাণের মাধ্যমে তা মোকাবিলা করেছিল।

SHARE