রূপচর্চায় তেঁতুলের ব্যবহার

86

তেঁতুলের নাম শুনেই জিভে জল চলে আসে। টক-মিষ্টি তেঁতুল সুস্বাদু নানা পদ তৈরিতে প্রয়োজন হয়। কিন্তু শুধু রান্নাতেই নয়, রূপচর্চায় তেঁতুলের বহু উপকারিতা আছে। তেঁতুলের মধ্যে উপস্থিত ভিটামিন সি , ক্যারোটিন, ভিটামিন বি, পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম ত্বক উজ্জ¦ল এবং সুন্দর করে। রূপচর্চায় তেঁতুলের উপকারিতা : ত্বক উজ্জ¦ল করতে তেঁতুল অন্যতম একটি প্রাকৃতিক উপাদান। সামান্য তেঁতুল গরম জলে ফুটিয়ে নিন। তেঁতুলের কাথ/পাল্প বের করে ত্বকের উপর প্রত্যেকদিন লাগান। ত্বক উজ্জ¦ল ও প্রাণবন্ত হবে কিছুদিনের মধ্যেই। তেঁতুল অন্যতম একটি প্রাকৃতিক ব্লিচিং উপাদান। পার্লারে গিয়ে কেমিক্যালযুক্ত ব্লিচিংয়ের বদলে, বাডেিত বসেই তেঁতুলের মাস্ক তৈরি করে নিন। ১ চামচ তেঁতুলের কাথ/পাল্প, ১ চামচ লেবুর রস এবং ১ চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ১৫-২০ মিনিট ত্বকের উপর লাগিয়ে রেখে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত্বক এক্সফোলিয়েট করতে ব্যবহার করতে পারেন তেঁতুলের ফেস স্ক্রাব। ১ চামচ তেঁতুলের কাথ/পাল্প, ১ চামচ সামন্দ্রিক লবণ ও সামান্য দুধ বা দই মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করে নিন। মিশ্রণ অল্প অল্প করে ত্বকের উপর লাগিয়ে নিন।ত্বকে ইনস্ট্যান্ট গ্লো পেতে তেঁতুলের কাথ/পাল্পের সঙ্গে ২ চামচ ময়দা, ১ চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ত্বকের উপর পুরু করে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। তারপর হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। বডি স্ক্রাব হিসেবেও ভালো কাজ দেয় তেঁতুল। ২ চামচ তেঁতুলের কাথ/পাল্প, ১ চামচ লেবুর রস, অর্ধেক চামচ বেকিং সোডা ও ১ চামচ চিনি একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ত্বকে নিয়মিত লাগালে ব্রণ ও তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা দূর হবে। সামান্য তেঁতুল জলে সিদ্ধ করে নিন। সেই জল টোনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। তেঁতুলের কাথ/পাল্প, সুজি, ময়দা একসঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করুন। মিশ্রণটি অ্যান্টি-এজিংয়ের কাজ করে। মিশ্রণটি ত্বকে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। প্রত্যেকদিন ব্যবহার করলে ত্বকে বয়সের ছাপ পডবে না সহজে। ১ চামচ চন্দন পাউডার, ১ চামচ মুলতানি মাটি, ২ চামচ দই, কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ত্বকের উপর ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। তেঁতুলের মধ্যে থাকা ভিটামিন ত্বকের ম্লানভাব দূর করে এবং ত্বক উজ্জ¦ল করে। তেঁতুলের মধ্যে থাকা আলফা হাইড্রোক্সি অ্যাসিড ত্বকের উপর থেকে মেচেতার মতো জেদি দাগছোপ দূর করতে সহায়ক। তেঁতুলের মধ্যে ভিটামিন এ-সি  এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বককে ডার্ক সার্কেল মুক্ত করে। তেঁতুলের তেল ত্বক উজ্জ¦ল ও ফরসা করে। ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধির সঙ্গে ত্বকের সুস্বাস্থ্যেরও বৃদ্ধি ঘটায়।