যুক্তরাষ্ট্রে ফেইসবুক লাইভে নির্যাতনের ভিডিও, আটক চার

05হাত-পা ও মুখ বাঁধা এক লোককে নির্যাতন করার এক ভিডিও ফেইসবুকে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো-তে চার লোককে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, নির্যাতিত ওই ব্যক্তি ছিলেন শারিরীক প্রতিবন্ধী। আক্রমণকারীদের মুখে শ্বেতাঙ্গ ও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত ডোনাল্ড ট্রাম্প-এর বিরুদ্ধে অবমাননাকর বিবৃতি দিতে শোনা গেছে। ভিডিও’র এক অংশে নির্যাতিতের মাথায় ছুরি দিয়ে আঘাত করতে দেখা যায় বলে জানায় বিবিসি। শিকাগো পুলিশ এই ভিডিওকে ‘অসুস্থ করে দেওয়ার মতো’ সম্ভাব্য ঘৃণামূলক অপরাধ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। টুইটারে সম্প্রচার করা এক সংবাদ সম্মেলনে শিকাগো পুলিশ সুপারইনটেনডেন্ট এডি জনসন বলেন, “এটি দেখে আশ্চর্য লাগে কী কারণে কেউ কারও সঙ্গে এমনটা করতে পারে। আমি ২৮ বছর ধরে পুলিশের কাজ করছি, আর আমি এমন কিছু দেখেছি যা আপনাদের সারা জীবনেও দেখার কথা না, কিন্তু এটি আমাকেও হতবাক করেছে যে কীভাবে যা আপনাদের দেখা উচিত নয় তা আপনারা দেখেন?”  নির্যাতিত ওই শ্বেতাঙ্গ ব্যক্তি আক্রমণকারীদের কারও পরিচিত ছিল। সম্ভবত তাকে ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অপহরণ করে রাখা হয়েছিল। ওই আক্রমণে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়া লোকটি হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি। মঙ্গলবারেই এই ঘটনায় আক্রমণের শিকার হওয়া ব্যক্তিটিকে উদ্ধারে দ্রুত সাড়া দেওয়া পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তারা। ৩০ মিনিটের ওই ভিডিও-তে দেখা যায়, আক্রমণকারীরা ১৮ বছর বয়সী ওই নির্যাতিতের কাপড় ছিঁড়ে ফেলতে দেখা যায়। তারা তার গায়ে সিগারেটের ছাই ফেলে, তার মাথার পেছনে লাথি মারে ও ছুড়ি দিয়ে চুল কেটে ফেলে। ওই স্থানে কয়েকজন লোককে এই ঘটনা দেখে হাসতে ও ধূমপান করতে দেখা যায়।