আবারো চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অর্ষা

05সংখ্যায় কম হলেও সবসময় মানসম্পন্ন কাজই করার চেষ্টা করেন অর্ষা। আর সেসব কাজ হয়ে থাকে চ্যালেঞ্জিং। সে ধারাবাহিকতায় আসছে বিজয় দিবস উপলক্ষে অর্ষা দুটি বিশেষ নাটকে আবারো চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অভিনয় করেছেন। একটি অরণ্য আনোয়ারের নির্দেশনায় ‘ছোট বাড়ি বড় বাড়ি’ এবং অন্যটি তারিক মুহাম্মদ হাসানের নির্দেশনায় ‘আলোর পথে’। ফরিদুর রেজা সাগরের গল্প অবলম্বনে নির্মিত ‘ছোট বাড়ি বড় বাড়ি’ নাটকে অর্ষাকে দেখা যাবে লাকী নামের চরিত্রে এবং প্রয়াত আবদুল্লাহ আল মামুনের মঞ্চ নাটক ‘চারিদিকে যুদ্ধ’র অনুপ্রেরণায় নির্মিত ‘আলোর পথে’ নাটকে তার চরিত্রের নাম নীলা। এরইমধ্যে দুটি নাটকেরই কাজ শেষ করেছেন অর্ষা। দুটি চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজ করতে পেরে ভীষণ উচ্ছ্বসিত এই অভিনেত্রী। তিনি বলেন, সবসময়ই আমি চেষ্টা করি ভালো গল্পের নাটকে কাজ করতে। পুরো গল্পটিতে আমার চরিত্রের যেন একটি বিশেষত্ব থাকে সেদিকেও দৃষ্টি রাখার চেষ্টা করি আমি। বিজয় দিবসের যে দুটো নাটকে আমি অভিনয় করেছি, সে দুটোতেই আমার চরিত্র বেশ গুরুত্বপূর্ণ এবং চ্যালেঞ্জিং। অনুভূতি এমন যে মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, কিন্তু কাজ করতে গিয়ে সেই সময়টার সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধারা কত কষ্ট করে এই দেশ স্বাধীন করেছেন তা কিছুটা হলেও বুঝতে পেরেছি। তাই আবারো সেসব বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সশ্রদ্ধ সালাম। দর্শকের কাছে অনুরোধ থাকবে দুটি নাটকই দেখার জন্য। আসছে বিজয় দিবসে ‘ছোট বাড়ি বড় বাড়ি’ প্রচার হবে চ্যানেল আইতে এবং ‘আলোর পথে’ প্রচার হবে এনটিভিতে।
এদিকে আগামী ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে অর্ষা সজলের বিপরীতে ‘ক্রিস-ক্রস’ ও ‘ভালোবাসার মেঘফুল’ নামে দুটি নাটকে অভিনয় করছেন। অন্যদিকে তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র শাহরিয়ার নাজিম জয় পরিচালিত ‘অর্পিতা’রও শুটিং চলছে ফাঁকে ফাঁকে। চলচ্চিত্রটির প্রধান একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন অর্ষা। সকাল আহমেদ পরিচালিত ‘বাবুই পাখির বাসা’ ধারাবাহিক নাটকেও অভিনয় করছেন এ অভিনেত্রী। এটি নিয়মিতভাবে এটিএন বাংলায় প্রচার হচ্ছে।