অন্যায়কারীকে কোন ছাড় দেওয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

120

thana-bhobon-udbodhon-niamatpur-pic-from-tofaggol-26-11-16দলীয় নেতা কর্মীদের ইঙ্গিত করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, অন্যায়কারী যেই হোক না কেন অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। যদি সে আওয়ামী লীগের বড় নেতাও হয় তবুও তাকে অন্যায়ের শাস্তি পেতেই হবে। গতকাল শনিবার বেলা ১২টায় থানা চত্বরে নিয়ামতপুর থানার নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন উপলক্ষ্যে নওগাঁ জেলা পুলিশ আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, বিশ্বের স্বীকৃত নেতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন-শহীদ নূর হোসেন যে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছেন, সেই গণতন্ত্র স্বৈরাচার থেকে মুক্তি পেলেও বিপদ থেকে মুক্তি পায়নি। গণতন্ত্রকে সংহত করতে, প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে এবং শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের সেই অগ্রযাত্রা ধরে রাখার দায়িত্ব আমাদের সবার। তিনি আরো বলেন, ৫ জানুয়ারী নির্বাচনের পর পেট্রোল বোমা দিয়ে গাড়ির চালক পুড়িয়ে মুলত তারা গণতন্ত্রকে পুড়িয়ে পারতে চেয়েছিল। আজো গণতন্ত্রকে পুড়িয়ে মারার, গুলি করে হত্যা করার, রক্তাক্ত করার চক্রান্ত চলছে।
নওগাঁ পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক বিপিএম,পিপিএম এর সভাপতিত্বে সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মালেক এমপি, সাধারণ সম্পাদক সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ ও নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শহীদুজ্জামান সরকার এমপি, ইসরাফিল আলম এমপি, ছলিম উদ্দিন এমপি, ডিআইজি এম খুরশীদ হোসেন।
নওগাঁ জেলার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ডিএসবি ফারজানা হোসেনের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস, নওগাঁ জেলা প্রশাসক ড. আমিনুর রহমান, নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এনামুল হক।
প্রধান অতিথি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৩ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশের কথা বলেছিলেন, আজ বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তরিত হয়েছে। শেখ হাসিনা যা বলেন, তাই বাস্তবায়ন করেন। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে চলেছে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করবে। ২০১৮ সালের মধ্যে বাংলাদেশ শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে। একটি বাড়ীও বাদ থাকবে না বিদ্যুতের সুবিধা থেকে।