রংপুরে ৩ জঙ্গির আত্মসমর্পণ

63

gourbangla logoআইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে রংপুরে আত্মসমর্পণ করে অর্থ নিয়েছেন আরও তিন জঙ্গি। রংপুর শহরের শীতল কমিউনিটি সেন্টারে গতকাল বুধবার আত্মসমর্পণের অনুষ্ঠানে তিন জঙ্গির হাতে র‌্যাবের প্রতিশ্রুত পাঁচ লাখ টাকার চেক তুলে দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, এ দেশে আর কখনও জঙ্গিবাদের উত্থান হবে না। এখন যে দুচারজন আছে তাদের খুব অল্প সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করা হবে। তবে যদি তারা আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে চায় তাদের পুনর্বাসনে সব ধরনের সহায়তা করা হবে। মন্ত্রী জঙ্গিবাদে ঈন্ধনদাতাদের হুঁশিয়ার করে বলেন, যারা ঈন্ধন দিচ্ছে তাদের যে পরিণতি হবে তা একমাত্র আল্লা ছাড়া কেউ বলতে পারে না। দেশের মানুষ এখন ঘুরে দাঁড়িয়েছে। অনুষ্ঠান শেষে মন্ত্রী তিনজনের হাতে চেক তুলে দেন। তিনজনের মধ্যে দুইজন হলেন – মাসুদ রানা (১৮) ও আক্তারুজ্জামান (১৮)। মাসুদ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার লোহারবান গ্রামের মেন্দেল হোসেনের ছেলে ও রামেশ্বর দারুল হুদা হাফেজিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্র। আক্তারুজ্জামান একই উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের সারোয়ার হোসেনের ছেলে ও নারায়ণপুর মিজবাহুল উলুম কওমি ও হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র। অন্যজন ১৬ বছরের এক কিশোর। সে একটি দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণির ছাত্র। অনুষ্ঠানে আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে মাসুদ বক্তব্য দেন। মাসুদ বলেন, আমরা ভুল পথে গিয়েছিলাম। আমাদের জেএমবির কিছু লোক ভুল পথে নিয়ে গিয়েছিল। যখন দেখলাম যে তারা মানুষ খুন করছে তখন আমরা ফিরে আসি। সবাইকে ফিরে আসার অহ্বান জানাই। র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, এই দেশটাকে আর কখনও কেউ অকার্যকর রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করার ষড়যন্ত্র করতে পারবে না। যে যেখানে জঙ্গি সম্পৃক্ততায় আছে, আমরা খুঁজে খুঁজে বের করব। এজন্য সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন। র‌্যাব আয়োজিত অনুষ্ঠানে র‌্যাব ১৩-এর রংপুরের অধিনায়ক কমান্ডার এ বি এম আতিক উল্লাহ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা উপস্থিত ছিলেন। রংপুরের আগে গত ৫ অক্টোবর বগুড়ায় এক অনুষ্ঠানে ‘নব্য জেএমবি’র দুই সদস্যকেও পাঁচ লাখ টাকা করে চেক হস্তান্তর করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। গত ১ জুলাই ঢাকার গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে ও এর এক সপ্তাহ পরে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় দেশের সবচেয় বড় ঈদের জামাতে জঙ্গি হামলার পর ঘরছাড়া তরুণদের জড়িত থাকার তথ্য উঠে আসে। এই প্রেক্ষাপটে র‌্যাব-পুলিশ নিখোঁজ তরুণদের তালিকা প্রকাশ করে তাদের পরিবারের কাছে ফিরে আসার আহ্বান জানায়; র‌্যাবের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয় পুরস্কার।