রিজার্ভ চুরির দেড় কোটি ডলার ফেরত পেল বাংলাদেশ

63

bb-reserveবাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে ১ কোটি ৫০ লাখ ডলার ফেরত দিয়েছে ফিলিপাইন সরকার। ফিলিপাইনের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিলের কাছ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং ডিপার্টমেন্টের দুই সদস্যের উপস্থিতিতে এ টাকা গ্রহণ করেছেন ফিলিপাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জন গোমেজ। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান বলেন, শুক্রবার চুরি হয়ে যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারেরমধ্যে ১ কোটি ৫০ লাখ ডলার আমরা হাতে পেয়েছি। ব্যাংকিং প্রক্রিয়ায় ওই টাকা হস্তান্তর হবে। তবে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে এ টাকা পৌঁছতে ২-৩ দিন সময় লাগতে পারে।’ এর আগে শুক্রবার ফিলিপাইনের একটি আদালত তাদের কেন্দ্রীয় ব্যাংককে ১৫ মিলিয়ন (দেড় কোটি ডলার) বাংলাদেশ ব্যাংককে দিতে নির্দেশ দেন। এরপর ফিলিপাইনের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধিদলকে ওই টাকা বুঝিয়ে দেয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থনৈতিক গোয়েন্দা ইউনিটের মহাব্যবস্থাপক দেবপ্রসাদ দেবনাথের নেতৃত্বে অ্যান্টি মানি লন্ডারিং বিভাগের দুই সদস্যের প্রতিনিধিদল এ অর্থ গ্রহণ করে। গৃহীত অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে জমা করা হয়েছে। এর আগে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সুইফট সিস্টেম ব্যবহার করে ভুয়া বার্তা পাঠিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রায় ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরির ঘটনা ঘটে। রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনে (আরসিবিসি) যাওয়া টাকার একটি বড় অংশ পরে ফিলিপিন্সের জুয়ার টেবিলে চলে যায়। এর মধ্যে ক্যাসিনো মালিকের ফেরত দেয়া দেড় কোটি ডলার পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়া শুরু করতে আগস্টে ফিলিপাইনের ম্যানিলা গিয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি দল।