মুক্তির অপেক্ষায় রুনা খান

108

02মডেল ও অভেনত্রী রুনা খান। নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের হয়ে মঞ্চে খালেদ খানের নির্দেশনায় ‘কাল সন্ধ্যা’ এবং সারা যাকেরের নির্দেশনায় ‘স্মৃতি ও ভবিষ্যৎ’ নাটক দুটিতে অভিনয় করে আলোচনায় চলে আসেন। টিভি নাটকে তার অভিষেক ঘটে কায়েস চৌধুরীর পরিচালনায় ‘গেরদালী’ নাটকে। এছাড়া বিটিভিতে প্রচারিত শিশুতোষ ধারাবাহিক ‘সিসিমপুর’-এর মাধ্যমে সারা দেশে ব্যাপক পরিচিতি পান রুনা। সেখানে তিনি স্কুলশিক্ষিকা সুমনার চরিত্রে অভিনয় করে গ্রামে-গঞ্জে মাস্টারনী নামে পরিচিতি পেয়ে যান। এখানেই শেষ না। বেশকিছু চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন তিনি। তবে সেগুলো এখনও মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এ পর্যন্ত ডিজিটাল ফরম্যাটে নির্মিত তিনটি ছবিতে (বালিঘড়ি, ঊনাদিত্য, বাথান) অভিনয় করেছেন তিনি। এছাড়া তার অভিনীত এনামুল করিম নির্ঝরের ‘নমুনা’ ছবিটি আটকে আছে। সরকারি অনুদানের ছবিতেও কাজ করেছেন তিনি। সাজেদুল আওয়াল পরিচালিত ‘ছিটকিনি’, নির্মলেন্দু গুণের উপন্যাস অবলম্বনে মৃত্তিকা গুণের নির্দেশনায় ‘কালো মেঘের ভেলায়’, পারভেজ আমিনের ‘ঘুনটি ঘর’ ছবিতে কাজ করেছেন। এছাড়া ডিসেম্বরে রাজবাড়ীতে তৌকীর আহমেদের ‘হালদা’ নামে নতুন ছবিতেও কাজ করছেন তিনি। এসব ছবির প্রসঙ্গে রুনা খান বলেন, সত্যি বলতে বেশকিছু ছবিতে কাজ করেছি। ডিজিটাল ফরমেটে নির্মিত ছবির পাশাপাশি পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবিতেও কাজ করা হয়েছে। এরমধ্যে ‘ছিটকিনি’, ‘ঘুনটি ঘর’ ছবিগুলোর শুটিং ও ডাবিং শেষ হয়েছে। এখন ছবি দুটি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। তিনি আরও বলেন, তৌকীর আহমেদের পরিচালনায় ‘হালদা’ ছবিতে কাজ করছি। এ ছবিতে আমার চরিত্রের নাম জুঁই। এখানে আমার বিপরীতে জাহিদ হাসান অভিনয় করছেন। এ ছবির কাহিনীতে জাহিদ ভাইয়ের দুই বৌ। এখানে বড় বৌয়ের চরিত্রে আমি এবং ছোট বৌ এর চরিত্রে তিশা অভিনয় করছে। এখানে গ্রামের সহজ-সরল মধ্যবিত্ত একটি মেয়ের চরিত্রে আমাকে দেখা যাবে। এরমধ্যে এ ছবির এক ধাপ কাজ শেষ হলেও রাজবাড়ীতে ডিসেম্বরে এ ছবির পরবর্তী ধাপের কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। আশা করি, বড় পর্দায় আমার কাজগুলো দর্শক পছন্দ করবেন। আমিও সে অপেক্ষাতেই আছি। উল্লেখ্য, চলচ্চিত্রে কাজের বাইরে রুনা খান অভিনীত বেশকিছু ধারাবাহিক নাটক এখন বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে। তার অভিনীত এসব নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে অরণ্য আনোয়ারের ‘দহন’, বি ইউ শুভর ‘লাইফ ইন এ মেট্রো’, গোলাম সোহরাব দুদুলের ‘সংসার’, আলী ফিদা একরাম তোজোর ‘অঘটনঘটনপটীয়সী’, তাহের শিপনের ‘গোলাপ মঞ্জুর’।