রানালদো আর রোমারিওর থেকেও দুর্দান্ত নেইমার

119

03-customব্রাজিলের কিংবদন্তি ফুটবলার রোনালদো আর রোমারিওর থেকেও দুর্দান্ত ফুটবলার নেইমার-এমনটি দাবি আরেক কিংবদন্তি তোতাওয়ের। ২৪ বছর বয়সী নেইমারের খেলার ধরন পেলে-রোনালদো কিংবা রোমারিওর থেকেও দারুণ বলে মনে করেন ব্রাজিলের ফুটবল ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকায় দশ নম্বরে থাকা তোতাও। তোতাও জানান, ‘নেইমার এই বয়সেই ব্রাজিলের গ্রেট ফুটবলারদের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। রোনালদো-রোমারিওর থেকেও সে দুর্দান্ত ফুটবলার। ভিন্ন কিছু ধরন থাকায় রোনালদো-রোমারিও যেমন গ্রেট ফুটবলার হয়েছিলেন, তেমনি নেইমারও তাদের জায়গা দখল করছে নিজের প্রতিভাগুণে।’ ব্রাজিলের জার্সি গায়ে ৫৪ ম্যাচে ৩২ গোল করা তোতাও আরও যোগ করেন, ‘আমি জানিনা কেন নেইমার এখনই বিশ্বসেরা ফুটবলার হিসেবে স্বীকৃতি পাচ্ছে না। তবে, কোনো সন্দেহ নেই সে খুব শিগগিরই এই সম্মান পেতে যাচ্ছে। একজন দক্ষ আর বিশেষ গুণসম্পন্ন ফুটবলার হতে যা যা থাকা দরকার নেইমারের মাঝে তারই সবই আছে। তার অ্যাটাকের ধরন দেখেই বলে দেওয়া যায়, সে বিশেষ কিছু স্কিল রপ্ত করেছে।’ ব্রাজিলের ফুটবল ইতিহাসে সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা পেলে। ৯১ ম্যাচ খেলে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে পেলে গোল করেছেন ৭৭টি। রোনালদো ৯৮ ম্যাচ থেকে গোলের দেখা পেয়েছেন ৬২টি। আর রোমারিও ৭০ ম্যাচ থেকে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়েছেন ৫৫ বার। সেখানে নেইমার ৭৩ ম্যাচ খেলে দেশের হয়ে গোল করেছেন ৪৯টি। ৪৮ গোল করা জিকোকে টপকে চতুর্থ স্থানে এখন নেইমার। বার্সার এই তারকার পর রয়েছেন বেবেতো, রিভালদো, রোনালদিনহো, আদেমিররা। সেলেকাও তারকা নেইমার প্রসঙ্গে তোতাও আরও জানান, ‘তার শট সিলেকশন দারুণ, তার বুদ্ধিদীপ্ত পাস গুলোও দেখার মতো। সে খুবই দ্রুতগতিতে খেলতে সক্ষম। পেলের পর নেইমারকেই এমন গ্রেট ফুটবলার হিসেবে দেখা যাচ্ছে।’ তবে, এমন দুর্দান্ত পারফর্মের পরও নেইমার ব্যালন ডি অর জিততে পারেননি। তারও ব্যাখ্যা দিয়েছেন তোতাও। তিনি জানান, ‘নেইমার এক নম্বর ফুটবলার হতে পারছে না শুধু একটি কারণেই। আর তা হলো, নেইমারের যুগে মেসি আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো খেলছে। কিন্তু, আমি বলছি নেইমার তাদের থেকেও সেরা ফুটবলার যারা নিজেদের সময়ে শীর্ষে ছিল। রিভালদো, কাকা, লুইস ফিগোরা নিজেদের সময়ে যেভাবে ফুটবলকে মাতিয়ে রাখতো, নেইমারও ঠিক সেভাবে বিশ্ব ফুটবলকে মাতিয়ে রাখছে।’